ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতায় বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ হাইকোর্টের

চলতি বছর ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতা বা গাফিলতি আছে কিনা তা তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) বিচারপতি তারিক উল হাকিম ও বিচারপতি মো. ইকবাল কবিরের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ নির্দেশ দেন।

একই সঙ্গে তদন্তের জন্য ঢাকা জেলা ও দায়রা জজ এবং স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব পদমর্যাদার নীচে নয় এমন একজনকে নিয়ে এ তদন্ত কমিটি গঠিত হবে। ওই কমিটির তদন্ত প্রতিবেদন আগামী ১৫ জানুয়ারির মধ্যে দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

হাইকোর্ট বলেছেন, তদন্ত কমিটি বিশেষজ্ঞ মতামতের জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের কীট-তত্ত্ব বিভাগ, আইসিডিডিআরবি, গণস্বাস্থ্য বিভাগ, প্লান্ট প্রটেকশন উইং এর সাহায্য-সহযোগিতা নিতে পারবেন। এর বাইরেও যাদের সহযোগিতা দরকার তাদের সহযোগিতাও কমিটি নিতে পারবেন।

আদালতে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার তৌফিক ইনাম টিপু। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে আইনজীবী ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার কাজী মাঈনুল হাসান।

এ বিষয়ে ব্যারিস্টার তৌফিক ইনাম টিপু বলেন, গত মে মাসে ডেঙ্গু বিষয়ে হাইকোর্ট একটা স্বপ্রণোদিত হয়ে রুল জারি করেছিলেন। তারই ধারাবাহিকতায় আজকে মামলাটি এসেছিল। ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে কি কাজ করা হয়েছে সে বিষয়ে ঢাকা উত্তর ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন থেকে প্রতিবেদন আজকে আদালতে দাখিল করেছি।

তিনি বলেন, আদালত শুনানি নিয়ে সরকারি হিসেবে ১১২ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। এর পেছনে নিশ্চিয়ই কোনো অবহেলা ছিল। আদালত ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে কোনো ব্যর্থতা বা গাফিলতি আছে কিনা সেটি তদন্ত করতে ঢাকা জেলা ও দায়রা জজের নেতৃত্বে একটা তদন্ত কমিটি গঠন করে দিয়েছেন। ওই কমিটিতে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিবের নীচে নয় এমন একজন পদমর‌্যাদার কাউকে সংযুক্ত করবেন। এই কমিটি আগামী ১৫ জানুয়ারির মধ্যে একটি প্রতিবেদন দেবেন।

এর আগে রাষ্ট্রপক্ষ থেকে একটি প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করা হয়। সেখানে সরকারি হিসেবে ১১২ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন বলে জানানো হয়। এর আগে গত ২৮ আগস্ট এক আদেশে আদালত ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে সরকারের নেয়া কাজের অগ্রগতি জানাতে নির্দেশ দিয়েছিলেন।

গত ২৮ আগস্ট এক আদেশে আদালত ডেঙ্গুতে নিহতের সংখ্যা জানাতে এবং নিয়ন্ত্রণে সরকারের নেওয়া কাজের অগ্রগতি জানাতে নির্দেশ দিয়েছিলেন।

 

বৈশাখী নিউজ/ জেপা

loading...