চলছে বছরের শেষ সূর্যগ্রহণ

আংশিক বলয়গ্রাস সূর্যগ্রহণ চলছে। এসময় সূর্যের চারপাশে থাকবে এক আগুনের বলয়। বিজ্ঞানীরা যাকে বলেন ‘রিং অব ফায়ার’।

গ্রহণের সময় সূর্যকে রক্তাক্ত আংটির মতো দেখাবে। এধরণের সূর্যগ্রহণ শেষবার মানুষ দেখেছিল ১৭২ বছর আগে।

বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা ৩০ মিনিটে শুরু হয়ে দুপুর ২টা ৫ মিনিট ৩৬ সেকেন্ডে সম্পন্ন হবে সূর্যগ্রহণ। ঢাকার স্থানীয় সময় সকাল ৯টা ২ মিনিটে সূর্যগ্রহণ শুরু হবে। সকাল ১০টা ২৮ মিনিটে সূর্যগ্রহণের সর্বোচ্চ পর্যায়ে থাকবে। এরপর দুপুর ১২ টা ৬ মিনিটে তা শেষ হবে।

সূর্যগ্রহণ খালি চোখে দেখা অত্যন্ত ক্ষতিকর। এছাড়া এক্স-রে ফিল্ম, নেগেটিভ, ভিডিও এবং অডিও ক্যাসেটের ফিতা, সানগ্লাস, ঘোলা বা রঙিন কাচেও সূর্যের ক্ষতিকর অতিবেগুনি ও অবলোহিত রশ্মি আটকে না। তাই কোনোক্রমেই এগুলো দিয়ে সূর্যগ্রহণ দেখা উচিত নয়।

তবে ১৩ ও ১৪ গ্রেডের ওয়েল্ডিং গ্লাস বা আর্ক গ্লাস দিয়ে নিরাপদে সূর্যগ্রহণ পর্যবেক্ষণ করা যাবে। ১১ গ্রেডের ওয়েল্ডিং গ্লাস দিয়েও সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে। সেক্ষেত্রে দুটি গ্লাস একত্র করে তারপর দেখতে হবে। তবে কোনো ফিল্টার দিয়েই একনাগাড়ে বেশিক্ষণ সূর্যের দিকে তাকানো যাবে না। সোলার ফিল্টার ছাড়াও পিনহোল ক্যামেরা দিয়ে কোনো স্ক্রিনের ওপর সূর্যের প্রতিবিম্ব ফেলে সূর্যগ্রহণ দেখা যেতে পারে।

ঢাকা ছাড়াও সূর্যগ্রহণ ময়মনসিংহে শুরু ৯টা ৬ মিনিটে ও সম্পন্ন ১২টা ৮ মিনিট ২৪ সেকেন্ডে, চট্টগ্রামে শুরু ৮টা ৫৫ মিনিট ৩৬ সেকেন্ডে ও সম্পন্ন ১১টা ৫৮ মিনিটে, সিলেটে শুরু ৯টা ৩৬ সেকেন্ডে ও সম্পন্ন ১২টা ৩ মিনিটে, খুলনায় শুরু ৯টা ৫ মিনিট ৪২ সেকেন্ডে ও সম্পন্ন ১২টা ৮ মিনিট ৬ সেকেন্ডে, বরিশালে শুরু ৯টা ২ মিনিট ১৮ সেকেন্ডে ও সম্পন্ন ১২টা ৪ মিনিট ৪২ সেকেন্ডে, রাজশাহীতে শুরু ৯টা ১২ মিনিট ১২ সেকেন্ডে এবং সম্পন্ন ১২টা ১৪ মিনিট ৩৬ সেকেন্ডে। আর রংপুরে শুরু হবে সকাল ৯টা ১২ মিনিট ৪৮ সেকেন্ডে এবং সম্পন্ন হবে ১২টা ১৫ মিনিট ১২ সেকেন্ডে।

 

বৈশাখী নিউজ/ জেপা

loading...