‘ইভিএমে কারচুপি করে জনপ্রতিনিধি উপহার দেবে ইসি’

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, ইসি ইভিএমে ডিজিটাল কারচুপির মাধ্যমে জনপ্রতিনিধি উপহার দেবে। একারণে সব মতামতকে থোড়াই কেয়ার না করে সিইসি নূরুল হুদার কমিশন ইভিএমে ভোট করতে চান। রোববার (১২ জানুয়ারি) দুপুরে নয়াপল্টনে বিএনপির কার্যালয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ে এসব কথা বলেন তিনি।

রিজভীর বলেন, এবার শুধু ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) খরচ গিয়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় ৬৯ কোটি টাকায়। আর আগে ২০১৫ সালে ঢাকার দুই সিটিতে ব্যালটে নির্বাচন করতে ইসির খরচ হয়েছিল ২৮ কোটি টাকা। ইভিএমে অর্থ বেশি তাই ইসির কাছে মধু। আমরা আবারও আহ্বান জানাচ্ছি ইভিএমের মাধ্যমে নির্বাচনের পথ থেকে এখনি সরে আসুন। অন্যথায় পদত্যাগ করুন।

তিনি বলেন, ঢাকার দুই সিটি নির্বাচনের ভোটকেন্দ্র আড়াই হাজার আর ভোটকক্ষ প্রায় ১৪ হাজার। প্রতিটি কক্ষে তারা একটি করে ইভিএম ব্যবহার করতে চায়। সেই হিসাবে ১৪ হাজার ইভিএমের প্রয়োজন পড়ে।

২৯ ডিসেম্বরে ইসির জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের (এনআইডি) মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম জানিয়েছিলেন, নির্বাচনে ৩৫ হাজার ইভিএম ব্যবহার করা হবে। অতিরিক্ত ২১ হাজার ইভিএম কোথায় ব্যবহার করা হবে? ইসির বক্তব্য অনুযায়ী ব্যাকআপ হিসাবে ৫০ শতাংশ মেশিন যদি রাখাও হয় তাহলে প্রতি কক্ষের জন্য অতিরিক্তসহ মোট ২১ হাজার ইভিএম লাগার কথা। কিন্তু দেখা যাচ্ছে নির্বাচন কমিশন আরও ১৪ হাজার ইভিএম অতিরিক্ত প্রস্তুত রাখছে। এর মূল উদ্দেশ্য ভোটের আগেই ফলাফল প্রস্তুত করা, যোগ করেন বিএনপির এই নেতা।

তিনি আরও বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া শারীরিক অবস্থা গুরুতর। কিন্তু সরকার মদতে তা গোপণ করা হচ্ছে।

বৈশাখী নিউজ/ জেপা