ধোনি-রোহিত লড়াই দিয়ে শুরু হচ্ছে আইপিএল

রোহিত শর্মার মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স ও মহেন্দ্র সিংহ ধোনির চেন্নাই সুপার কিংসের লড়াই দিয়ে শুরু হচ্ছে এবারের আইপিএল। দীর্ঘ পাঁচ মাস গৃহবন্দি থাকার পর আগামীকাল শনিবার ফের প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক ক্রিকেটে ফিরতে চলেছেন ধোনি, রোহিত, বুমরারা।

বল গড়াবে সংযুক্ত আরব আমিরাতের মাঠে। সেখানে ক্রিকেটাররা পরিবার নিয়েও যেতে পারবেন বলে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

লড়াই শুরুর আগে দু’দলের মধ্যেই চলছে প্রথম ম্যাচের পরিকল্পনা। বৃহস্পতিবার অধিনায়ক রোহিত এবং কোচ মাহেলা জয়বর্ধনেকে নিয়ে ‘ভার্চুয়াল’ সাংবাদিক বৈঠক আয়োজন করে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। সেখানেই রোহিতকে প্রশ্ন করা হয়, এবার লাসিথ মালিঙ্গা খেলছেন না। তার পরিবর্ত হিসেবে কার কথা ভাবছেন?

মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স অধিনায়কের জবাব, ‘মালিঙ্গার জায়গা পূরণ করা যায় না। ওর বিকল্প হয় না। আমাদের দলের অন্যতম সেরা ম্যাচ উইনার ছিল ও। যখনই আমরা বিপদে পড়েছি, ম্যাচে ফিরিয়ে এনেছে মালিঙ্গা। ওর অভাব খুবই অনুভব করব। তবে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। মালিঙ্গার জায়গা পূরণ করার দায়িত্ব থাকবে জেমস প্যাটিনসনের উপরে।’

বেশ কিছু সমস্যার মধ্যদিয়ে যাচ্ছে রোহিতদের প্রথম প্রতিপক্ষ চেন্নাই শিবির। ফিরে গিয়েছেন সুরেশ রায়না। আইপিএল থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন হরভজন সিংহও। প্রথম ম্যাচে হয়তো পাওয়া যাবে না করোনায় আক্রান্ত রুতুরাজ গায়কোয়াড়কেও। রোহিত যদিও মানতে নারাজ সহজ প্রতিপক্ষ পাচ্ছেন।

তার কথায়, ‘বিপক্ষ শিবিরের দুর্বলতা নিয়ে চিন্তা করি না। নিজেদের শক্তি ও দক্ষতা নিয়ে ভাবতে চাই। চেন্নাই বরাবরই কঠিন প্রতিপক্ষ। ওরা লড়াই ছাড়বে না।’

আমির শাহির গরমের সঙ্গে মানিয়ে নিতে সব চেয়ে সমস্যা হচ্ছে রোহিতদের। পাশাপাশি, দু’বছর আগে এখানে এশিয়া কাপ খেলার অভিজ্ঞতা থেকেই বলে দিলেন, উইকেট পরের দিকে ভাঙতে শুরু করবে। তাই কোন পিচ কী রকম, তা বোঝা কঠিন।’

রোহিতের কথায়, ‘অধিনায়ক হিসেবে এবার সব চেয়ে বড় দায়িত্ব, পিচের চরিত্র বোঝা। তিনটি মাঠে তিন রকম উইকেট। সেটা বুঝে ওঠা কঠিন।’

একইসঙ্গে তিনি পরিষ্কার করে দিয়েছেন, ওপেনার হিসেবেই নিজেকে ভাবছেন। পরের দিকে নামার পরীক্ষা নীতিতে যাবেন না। রোহিতের ঘোষণা, ‘আমি ওপেনই করব। সঙ্গে কুইন্টন ডি’কক থাকবে নাকি ক্রিস লিন, সেটা আমরা পরে ঠিক করব।’

কোচ মাহেলা জয়বর্ধনে বলেন, ‘হার্দিক পাণ্ড্যের প্রত্যাবর্তন নিয়ে খুশি। তবে নজর রাখতে হবে যাতে হার্দিকের উপর বেশি ধকল না পড়ে যায়।’

প্রাথমিকভাবে ঠিক হয়েছে আসরের সব ম্যাচ হবে দুবাই, শারজা এবং আবু ধাবিতে। তবে প্রয়োজনে তা পরিবর্তন হতে পারে। টুর্নামেন্টের ১০টি ম্যাচ হবে দিনে। বাকি সব ম্যাচ হবে রাতে। প্রতিটি ম্যাচের সম্প্রচার ৩০ মিনিট করে এগিয়ে আনা হয়েছে। দিনের ম্যাচগুলো বাংলাদেশ সময় বিকেল ৪টা থেকে শুরু হবে। রাতের ম্যাচ শুরু হবে বাংলাদেশ সময় রাত ৮টা থেকে। ফাইনাল হবে ১০ নভেম্বর।

বৈশাখী নিউজবিসি