মায়েরাই নেবেন প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা

করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে এবার বাসায় বসে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা নেওয়ার চিন্তা করছে সরকার। আর পরীক্ষা নেবেন মায়েরা।

শিক্ষকরা প্রশ্ন তৈরি করে শিক্ষার্থীদের বাসায় পাঠাবেন। সেসব খাতা শিক্ষকরা মূল্যায়ন করে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের কাছে ফলাফল পৌঁছে দেওয়া হবে। আর এ পরীক্ষা নেবেন শিক্ষার্থীর মায়েরা। এজন্য উপজেলাভিত্তিক বেশ কিছু স্বেচ্ছাসেবী নিয়োগ দেওয়া হবে। যারা বাসায় প্রশ্ন পৌঁছে দেবেন।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব আকরাম আল হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, করোনা সংকটের কারণে প্রথম সাময়িক পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। দ্বিতীয় সাময়িক পরীক্ষা আগামী ৯ আগস্ট থেকে শুরু করার কথা থাকলেও তা অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। এ কারণে শিক্ষার্থীরা যাতে বাসায় বসে পরীক্ষা দিতে পারে সে ব্যবস্থা করা হবে। শিক্ষার্থীদের মায়েরাই বাসায় বসে পরীক্ষা নেবেন।

‘শ্রেণি ক্লাসের টেলিভিশনে যেসব বিষয়ে পাঠদান হয়েছে তার ওপর ভিত্তি করে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা তাদের শিক্ষার্থীদের জন্য প্রশ্ন প্রণয়ন করবে। সেসব প্রশ্ন নির্ধারিত স্বেচ্ছাসেবীর মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের বাড়ি পাঠানো হবে। স্বেচ্ছাসেবীদের মাধ্যমে উত্তরপত্রগুলো শিক্ষকদের কাছে পৌঁছে দেওয়া হবে। পরীক্ষার তদারকি করবেন মায়েরা।’

পাস-ফেলের চেয়ে শিক্ষার্থীদেরকে পড়াশোনার মধ্যে রাখাই এ পরীক্ষার মূল উদ্দেশ্য বলে জানান সচিব।

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক পরীক্ষার রুটিনে দেখা গেছে, প্রথম শ্রেণি থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত প্রথম সাময়িক পরীক্ষা ১৫ এপ্রিল থেকে ২৪ এপ্রিলের মধ্যে, দ্বিতীয় সাময়িক পরীক্ষা ৯ আগস্ট থেকে ২০ আগস্টের মধ্যে, প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা ১৯ নভেম্বর থেকে ৩০ নভেম্বরের মধ্যে অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া প্রথম শ্রেণি থেকে চতুর্থ শ্রেণি পর্যন্ত বার্ষিক পরীক্ষা ২ ডিসেম্বর থেকে ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

বৈশাখী নিউজজেপা