মোদিবিরোধী মিছিলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনায় মামলা

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের বিরোধিতা করে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের বিক্ষোভ মিছিল থেকে সৃষ্ট পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনায় মতিঝিল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। পুলিশ বাদী হয়ে মামলাটি করেছে।

শুক্রবার (২৬ মার্চ) দিবাগত রাত ২টা ৫০ মিনিটে মতিঝিল থানার ডিউটি অফিসার উপপরিদর্শক আজিজ এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, রাত ২টায় মামলা রুজু করা সম্পন্ন হয়েছে। পুলিশ বাদী হয়ে মামলাটি করেছে। মামলায় প্রায় ৫০ জনকে আসামি করা হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে জানতে পেরেছি। এ ঘটনায় ইতোমধ্যে ৩৪ জন আটক রয়েছে। তাদের এই মামলায় গ্রেফতার দেখানো হবে।

তিনি আরও বলেন, মামলার বিষয়ে এখনই বিস্তারিত তথ্য নেই আমার কাছে। সকালে ঊর্ধ্বতন অফিসাররা বিস্তারিত জানাবেন।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আগমন ঘিরে ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরের নেতৃত্বে গতকাল বৃহস্পতিবার (২৫ মার্চ) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ছাত্র ও যুব অধিকার পরিষদের একটি মিছিল রাজধানীর বিজয়নগর পানির ট্যাংকি এলাকায় শুরু হয়। এতে পাঁচ শতাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

পুলিশের বাধা পেয়ে আন্দোলনকারীরা ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরের নেতৃত্বে মিছিল নিয়ে মতিঝিলের শাপলা চত্বরের দিকে যায়। সেখানে পুলিশের সঙ্গে ছাত্র অধিকার পরিষদের নেতাকর্মীদের সংঘর্ষ বাধে। বিক্ষোভ মিছিল থেকে সৃষ্ট ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় ৭ জন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন।

আহতদের মধ্যে ৪ পুলিশ সদস্যকে রাজারবাগ পুলিশ লাইন্স হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ ৩৪ জন আন্দোলনকারীকে আটক করে।

মতিঝিল জোনের সহকারী কমিশনার (এসি-পেট্রোল),পল্টন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু বকর সিদ্দিক, মতিঝিল থানার একজন উপ-পরিদর্শক (এসআই) ও একজন কনস্টেবল গুরুতরভাবে আহত হয়ে রাজারবাগ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। বাকি ৩ পুলিশ সদস্য সামান্য আহত। তারা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। তারা হলেন- খিলগাঁও জোনের অতিরিক্ত উপকমিশনার (এডিসি), মতিঝিল জোনের ট্রাফিক ইন্সপেক্টর ও এক কনস্টেবল।

পুলিশের পাশাপাশি সংঘর্ষে ১০-১৫ জন আন্দোলনকারী আহত হয়েছেন বলে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ থেকে জানানো হয়।

এ বিষয় জানতে চাইলে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) মতিঝিল বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) সৈয়দ নুরুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, মতিঝিল-পল্টনের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় অন্তত পুলিশের ৭ সদস্য আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে ৪ জন গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। বাকি তিন পুলিশ সদস্য প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত আমরা ৩৪ জনকে আটক করেছি।

বৈশাখী নিউজজেপা