২ গোলে এগিয়ে গিয়েও জয় পায়নি পর্তুগাল

প্রথম ম্যাচে নিজেরা গোল না পেলেও মিলেছিল জয়। এবার উল্টো অভিজ্ঞতা হলো পর্তুগালের; গোলের দেখা মিলল, কিন্তু জয় হলো হাতছাড়া। দুই গোলে পিছিয়ে পড়ার পর দ্বিতীয়ার্ধে দুর্দান্তভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে মূল্যবান একটি পয়েন্ট পেয়েছে সার্বিয়া। বেলগ্রেডে শনিবার রাতে ‘এ’ গ্রুপের রোমাঞ্চকর ম্যাচটি ২-২ ড্র হয়েছে।

বেশ কয়েকটি সুযোগ নষ্ট করা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর একেবারে শেষ সময়ের একটি প্রচেষ্টা নিয়ে ম্যাচে উত্তেজনা ছড়ায়। ডান দিক থেকে তার শটে বল গোলরক্ষকের গায়ে লেগে গড়িয়ে গোললাইন পেরিয়ে যাচ্ছিল। শেষ সময়ে গিয়ে ঠেকান সার্বিয়ার এক খেলোয়াড়। যদিও সফরকারীদের দাবি এটি গোল ছিল। এক অ্যাঙ্গেল থেকে দেখানো টিভি রিপ্লেতেও অনেকটা তাই মনে হয়েছে, তবে তা শতভাগ নিশ্চিত নয়। গোল না পেয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখানোয় হলুদ কার্ড দেখেন রোনালদো।

একাদশ মিনিটে রোনালদোর পাস পেয়ে বের্নার্দো সিলভা দারুণ ক্রস বাড়ান ছয় গজ বক্সে। লাফিয়ে নিখুঁত হেডে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন লিভারপুল ফরোয়ার্ড জোতা। দ্বিতীয় গোলটিও আসে অনেকটা একইভাবে। ৩৬তম মিনিটে ডান দিক খেকে সেদরিস সোয়ারেসের ক্রস পেয়ে হেডেই ঠিকানা খুঁজে নেন জোতা।

প্রথমার্ধে মোট সাতটি শট নেয় সার্বিয়া, যার একটি ছিল লক্ষ্যে। কিন্তু কোনোটিই পর্তুগাল গোলরক্ষককে তেমন পরীক্ষায় ফেলতে পারেনি।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই নতুন রূপে ধরা দেয় স্বাগতিকরা। বিরতির পর প্রথম মিনিটেই হেডে ব্যবধান কমান ফুলহ্যামের ফরোয়ার্ড মিত্রোভিচ। ৮ মিনিট পর আবারও গোল খেতে বসেছিল পর্তুগাল। দুসান তাদিচের জোরালো শটে কোনোমতে এক হাত দিয়ে বল ক্রসবারের ওপর দিয়ে পাঠান গোলরক্ষক লোপেজ।
৬০তম মিনিটে দারুণ এক পাল্টা আক্রমণে সমতা টানে সার্বিয়া। রাদোনিচের পাস ডি-বক্সের মুখে ধরে সঙ্গে লেগে থেকে ডিফেন্ডারকে এড়িয়ে নিচু শটে স্কোরলাইন ২-২ করেন আইনট্রাখট ফ্রাঙ্কফুর্টের মিডফিল্ডার কসতিচ।

যোগ করা সময়ের দ্বিতীয় মিনিটে দানিলোকে বিপজ্জনক ফাউল করে সরাসরি লাল কার্ড দেখেন সার্বিয়ার ডিফেন্ডার নিকোলা মিলেনকোভিচ। এর পরের মিনিটেই রোনালদোর প্রচেষ্টা নিয়ে বিতর্কিত ওই ঘটনা।

রেফারির সিদ্ধান্তে ডাগআউটে অসন্তোষ প্রকাশ করতে দেখা যায় পর্তুগাল কোচ ফের্নান্দো সান্তোসকেও।
দুই ম্যাচে সমান ৪ করে পয়েন্ট নিয়ে সার্বিয়া শীর্ষে আর পর্তুগাল দুইয়ে আছে।

বৈশাখী নিউজজেপা