আরও তিন রাফায়েল যুদ্ধবিমান আনছে ভারত

এশিয়ার পরাশক্তি ভারতে আসছে আরও তিনটি রাফায়েল জেট। বুধবার (৩১ মার্চ) সন্ধ্যা ৭টার দিকে ওই তিনটি যুদ্ধবিমান গুজরাটে অবতরণ করবে। ফ্রান্স থেকে উড্ডয়নের পর মাঝ আকাশেই জ্বালানি ভরে পুরো যাত্রা শেষ করবে বিমান বাহিনীতে যুক্ত হওয়া এই নতুন তিন সদস্য।

আরও তিনটি রাফায়েল যুক্ত হওয়ার পর গোল্ডেন অ্যারোজ স্কোয়াড্রনের মোট রাফায়েলের সংখ্যা হবে ১৪ টি। ফলে সামরিক দিক থেকে আরও শক্তিশালী হবে ভারত। আগত রাফায়েলের মধ্যে কয়েকটিকে পশ্চিমবঙ্গের হাসিমারা এয়ার ফোর্স স্টেশনে রাখা হতে পারে। হাসিমারাতে বিমান বাহিনীর ঘাঁটিতে ওই রাফায়েলগুলোকে অন্তর্ভুক্ত করা হবে।

২০২০ সালের ২৯ জুলাই সর্বপ্রথম ভারত রাফায়েল হাতে পায়। ১০ সেপ্টেম্বর সেগুলো বিমান বাহিনীতে যুক্ত হয়। দ্বিতীয় দফায় ওই বছরেরই ৪ নভেম্বর ভারতের হাতে আসে আরও ৪টি রাফায়েল।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালে ৩৬টি রাফায়েল কেনার জন্য ফ্রান্সের সঙ্গে চুক্তি করে ভারত। ৫৯ হাজার কোটি টাকা দিয়ে এই চুক্তি করা হয়। সেই চুক্তির ভিত্তিতেই ভারতের হাতে রাফায়েল জেট তুলে দিচ্ছে ফ্রান্স। ২০২০ সালের ১০ সেপ্টেম্বর প্রথম ভারতীয় বিমান বাহিনীতে যখন ৫টি রাফায়েল আনা হয়েছিল সে সময় ওই অনুষ্ঠানে ৯ লাখ ১৮ হাজার জিএসটিসহ মোট খরচ হয়েছিল ৪১ লাখ ৩২ হাজার টাকা।

এই বিমানের কিছু বিশেষত্ব রয়েছে। এই যুদ্ধবিমানে একবার জ্বালানি ভরা হলে এটি ১০ ঘণ্টা একটানা উড়তে পারে। এছাড়া উড়তে উড়তেও জ্বালানি ভরতে পারে এই যুদ্ধবিমান। রাফায়েলের সর্বাধিক গতি প্রতি ঘণ্টায় ২ হাজার ১৩০ কিলোমিটার, যা সমস্যায় ফেলতে পারে অন্য যুদ্ধবিমানকে। রাফালের আকার এই যুদ্ধবিমানকে দ্রুত লড়াই করতে সাহায্য করে। রাফায়েল দৈর্ঘ্যে ১৫.২৭ মিটার এবং প্রস্থে ১০.৮০ মিটার।

রাফায়েলে স্কাল্প ইজি স্টর্ম শ্যাডো, এএএসএম, ৭৩০ এ ট্রিপল ইজেক্টর র্যাক, ড্যামোক্লস পড, হামার মিসাইল অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে। এতে মোট তিন ধরনের মিসাইল বসানো যেতে পারে। এয়ার-টু-এয়ার মেটিওর মিসাইল, এয়ার-টু-গ্রাউন্ড স্কাল্প মিসাইল এবং হ্যামার মিসাইল। এর ফলে বিমানবাহিনীর শক্তি আরও কয়েকগুণ বৃদ্ধি পায়।

বৈশাখী নিউজজেপা