ইরান-চীন কৌশলগত চুক্তি: দু’পক্ষের কেউ কোনও প্রতিশ্রুতি দেয়নি!

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফ বলেছেন, দেশের সংবিধান মেনে চীনের সঙ্গে ২৫ বছর মেয়াদি কৌশলগত চুক্তি করা হয়েছে বলে এটি পাস করানোর জন্য পার্লামেন্টে উত্থাপনের প্রয়োজন নেই।

তিনি আরও বলেছেন, এই চুক্তিতে কোনও পক্ষই অপরপক্ষকে কোনও ধরনের প্রতিশ্রুতি দেয়নি।

জারিফ সম্প্রতি চীনের সঙ্গে স্বাক্ষরিত চুক্তির সারসংক্ষেপ অনলাইনে প্রকাশ করে আরও লিখেছেন, তবে পার্লামেন্টকে অবগত করার জন্য চুক্তির একটি কপি সংসদ সদস্যদের কাছে পাঠানো হবে।

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী লিখেছেন, এখন থেকে ১৮ মাস আগে এই চুক্তির প্রথম খসড়া তৈরি হয় এবং তারপর দু’দেশের মধ্যে কয়েকবার আলোচনার মাধ্যমে এটি চুড়ান্ত করা হয়। তিনি বলেন, এটি বাস্তবায়িত হলে বর্তমান আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপটে ইরানের স্বার্থ রক্ষিত হবে এবং এদেশের আপামর জনসাধারণ উপকৃত হবে।

গত ২৭ মার্চ তেহরানে ২৫ বছর মেয়াদি কৌশলগত অংশীদারিত্ব চুক্তি সই করে ইরান ও চীন। ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফ ও চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই তেহরানে ওই চুক্তিতে সই করেন। এ চুক্তির ফলে দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতা কৌশলগত অংশীদারিত্বে উন্নীত হয়। দ্বিপক্ষীয় এই চুক্তিতে রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্কের একটি পূর্ণাঙ্গ রোডম্যাপ রয়েছে।

এছাড়া, এ চুক্তিতে চীনের বেল্ট এন্ড রোড পরিকল্পনায় ইরানের অংশগ্রহণের কথা বলা হয়েছে এবং বেসরকারি খাতের মধ্যে ব্যাপকভিত্তিক সহযোগিতা গড়ে তুলতেও দুই দেশ চুক্তিতে সম্মত হয়েছে। ২০১৬ সালের জানুয়ারিতে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং ইরান সফরের সময় কৌশলগত অংশীদারিত্ব চুক্তি সইয়ের প্রস্তাব দেন।

বৈশাখী নিউজজেপা