ওয়াজেদ মিয়ার মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এমপি অপু’র উদ্যোগে শরিয়তপুরে দোয়া

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বামী পুরমানু বিজ্ঞানী মরহুম ড. এমএ ওয়াজেদ মিয়ার ১২ তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে শরীয়তপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ইকবাল হোসেন অপু’র উদ্যোগে শরীয়তপুর কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে মিলাদ ও দোয়ার আয়োজন করা হয়।

আজ রবিবার বাদ আসর এ দোয়া মোনাজাতের আয়োজন করা হয়। এরপর ইফতারের আয়োজন ব্যবস্থা হয়।

দোয়া মোনাজাতে স্থানীয় মুসল্লিদের পাশাপাশি আরও অংশগ্রহণ করেন, শরীয়তপুর সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাড. জাহাঙ্গীর হোসেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ফাহাদ হোসেন তপু, জেলা কৃষক লীগের আহবায়ক শামসুল হক আকন্দ, যুবলীগ নেতা মেহেদী হাসান অনু, জেলা ছাত্রলীগের নেতা আসাদুজ্জামান শাওন, সদর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-সভাপতি মিজানুর রহমান, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক হায়দার বেপারী, প্রচার সম্পাদক মামুন খান প্রমূখ।

১৯৪২ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার ফতেপুর গ্রামে ওয়াজেদ মিয়ার জন্ম। প্রয়াত আবদুল কাদের মিয়া ও ময়জান নেছার সন্তান ওয়াজেদ মিয়া ‘সুধা মিয়া’ নামেই বেশি পরিচিত ছিলেন।

ওয়াজেদ মিয়া ১৯৬১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পদার্থবিজ্ঞানে স্নাতক এবং ১৯৬২ সালে স্নাতকোত্তর করেন। ১৯৬৭ সালে তিনি যুক্তরাজ্যের ডারহাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি অর্জন করেন। ১৯৬৫ সালে তিনি তৎকালীন পাকিস্তান আণবিক শক্তি কমিশনে যোগ দিয়ে চাকরি জীবন শুরু করেন। পরে আণবিক শক্তি কমিশনের চেয়ারম্যানেরও দায়িত্ব পালন করেন তিনি।
ছাত্রজীবনে তিনি ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হন এবং ১৯৬১ সালে ফজলুল হক হল ছাত্র সংসদের ভিপি নির্বাচিত হন। তিনি ১৯৬৭ সালে বঙ্গবন্ধুকন্যা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বিয়ে করেন।

পদার্থবিজ্ঞান বিষয়ে তিনি বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বই লেখেন। রাজনীতি নিয়েও বই লিখেছেন ওয়াজেদ মিয়া। ২০০৯ সালের ৯ মে মারা যান তিনি।