বিশ্বকাপে ব্যর্থতার জন্য আইপিএলকে দুষলেন বুমরা

পর পর দুই ম্যাচে ব্যর্থ বিরাট কোহলীরা। পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ১৫১ রান করেছিল ভারত। রবিবার থেমে যেতে হল ১১০ রানে। ব্যর্থতার দায় আইপিএল-এর কাঁধেই চাপাতে চাইলেন যশপ্রীত বুমরা। সাংবাদিক বৈঠকে উত্তর দিলেন রবিচন্দ্রন অশ্বিনকে নিয়েও।

আইপিএল-এর পরেই বিশ্বকাপের চাপ। কোটিপতি লিগকে দুষলেন বুমরা। তিনি বলেন, “বিশ্রামের দরকার হয়। টানা ছ’মাস খেলতে থাকা সহজ নয়। পরিবারের সঙ্গে সময় কাটানোর প্রয়োজন হয়।

সেটা মনের মধ্যে চলতে থাকে। কিন্তু মাঠে নামলে সেটা ভাবলে চলে না। বিসিসিআই চেষ্টা করেছে আমাদের সাহায্য করতে। কিন্তু সূচি কী হবে সেটা আমাদের হাতে থাকে না। জৈব সুরক্ষা বলয়ের মধ্যে থাকলে মানসিক ক্লান্তি আসেই। কিন্তু কিছু করার নেই।”

বুমরা বলেন, “বড় রান দরকার ছিল। এই পিচে পরের দিকে ব্যাট করা সহজ, তাই ১০-২০ রান বেশি করার চেষ্টা ছিল আমাদের। বোলারদের সাহায্য করার জন্যই সেটা করতে চেয়েছিল ওরা। কিন্তু মারতে গিয়ে পর পর উইকেট হারাতে হয় আমাদের।”

প্রথমে পাকিস্তানের কাছে ১০ উইকেটে হার। দ্বিতীয় ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের কাছে ৮ উইকেটে হার। এর পরেও মুহ্যমান নন বুমরা। তিনি বলেন, “খেলায় হার জিত থাকবেই। জিতলে আমরা যেমন খুব আনন্দে মাতি না, তেমনই হারের পর ভেঙে পড়া উচিত নয়। এটাই খেলার ধর্ম। আমাদের সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে।”

দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করা সহজ হয়ে গিয়েছিল বলেই মত বুমরার। তিনি বলেন, “আগের ম্যাচে আমরা দেখেছিলাম যে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করা সহজ হয়ে গিয়েছিল। আজ বল করার সময় আমাদের লেংথ বলগুলো সে ভাবে কাজে লাগেনি। কিন্তু ওরা বল করার সময় সেই বল ঠিক মতো ব্যাটে আসছিল না।

সেই কারণেই আমরা আগে ব্যাট করতে নেমে বেশি রান করার চেষ্টায় আক্রমণাত্মক ব্যাট করছিলাম। টস খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়ে নিল।”

অশ্বিনের অভিজ্ঞতা কাজে লাগতে পারে মেনে নিলেও প্রথম একাদশ ঠিকই ছিল বলে মত বুমরার। তিনি বলেন, “অশ্বিন অভিজ্ঞ। কিন্তু কে নামলে কী হতে পারত তা বলা যায় না। আমরা আরও রান করতে পারতাম, আরও তাড়াতাড়ি উইকেট ফেলতে পারতাম, কিন্তু সেটা হয়নি।”

বৈশাখী নিউজ/ বিসি