চাল আমদানির বিষয়ে ভুল তথ্য না ছড়ানোর আহ্বান কৃষিমন্ত্রীর

কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, বাংলাদেশ চাল আমদানিতে দ্বিতীয় নয়। গত জুলাই থেকে এ পর্যন্ত (১৮ ডিসেম্বর) মাত্র ১৫ লাখ টন চাল দেশে আমদানি হয়েছে। কিন্তু ২৬ লাখ টন চাল আমদানির আইপিও দেওয়া হয়েছে। ফলে চাল আমদানিতে বাংলাদেশ দ্বিতীয়-এ ভুল তথ্য না ছড়ানোর জন্য সাংবাদিকদের আহ্বান জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার (২৩ ডিসেম্বর) ময়মনসিংহে বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটে (বিনা) এক সংবাদ সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ আহ্বান জানান।

চলতি মাসে চাল আমদানিতে বাংলাদেশ বিশ্বে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে বলে যুক্তরাষ্ট্রের কৃষি বিভাগের (ইউএসডিএ) এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

দেশে প্রথমবারের মতো লবণাক্ততা ও জলমগ্নতা সহিষ্ণু ধানের পূর্ণাঙ্গ জিনোম সিকোয়েন্স উন্মোচন করেছে বিনা ও বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) বিজ্ঞানীরা। সে তথ্য জানানোর জন্য এ সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করা হয়েছিল।

পূর্ণাঙ্গ জিনোম সিকোয়েন্স উন্মোচন বিষয়ে কৃষিমন্ত্রী বলেন, দেশের দুই মিলিয়ন হেক্টর জমি লবণাক্ত, যেখানে বছরে একটি ফসল হয়। খাদ্য নিরাপত্তা টেকসই করতে ও ভবিষ্যতে খাদ্যের ক্রমবর্ধমান চাহিদা মেটাতে আমরা লবণাক্ত, হাওরসহ প্রতিকূল এলাকায় বছরে দুই থেকে তিনটি ফসল উৎপাদনে গুরুত্ব দিচ্ছি। পূর্ণাঙ্গ জিনোম উন্মোচনের ফলে লবণাক্ততা ও জলমগ্নতা সহিষ্ণু জাতের ধান উদ্ভাবন ও সম্প্রসারণ সহজতর হবে।

সংবাদ সম্মেলনে বিনার মহাপরিচালক (ডিজি) ড. মির্জা মোফাজ্জল ইসলাম, বিএআরসির নির্বাহী চেয়ারম্যান ড. শেখ মো. বখতিয়ার, বাকৃবির উপাচার্য অধ্যাপক লুৎফুল হাসান, ব্রির ডিজি শাহজাহান কবীর প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বৈশাখী নিউজ/ জেপা