জানেন রোজ ধনে পাতা খেলে কী হয়?

খাবারই যেমনই হোক না-কেন, তাতে অল্প একটু ধনেপাতা কুঁচি ছড়িয়ে দিলেই খাবারে স্বাদ ও সৌন্দর্য বেড়ে যায় এক ধাক্কায়। শীতকাল এলেই বাজারে রমরমিয়ে বিক্রি হয় এই সুগন্ধী পাতাটি। অনেকেই মনে করেন স্বাদ ও সৌন্দর্য বৃদ্ধি ছাড়া ধনেপাতার আর কোন উপকারিতা নেই। কিন্তু এই ধারণা সম্পূর্ণ ভুল। শরীরের পক্ষে অত্যন্ত উপকারী ধনেপাতা।

চলুন ধনেপাতার উপকারিতা সম্পর্কে জানা যাক..

>ধনেপাতা দৃষ্টি শক্তি বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। ভিটামিন এ-তে সমৃদ্ধ হওয়ায় দৃষ্টি শক্তি বাড়ায় এই পাতা। পাশাপাশি চোখে ব্যথার সমস্যাও দূর করে। তাই নিজের খাদ্য তালিকায় ধনেপাতা অন্তর্ভূক্ত করা উচিত।

>ধনেপাতায় প্রচুর পরিমাণে ম্যাগ্নেশিয়াম, ক্যালশিয়াম, ভিটামিন এ, সি এবং পটাশিয়াম থাকে। শরীরে পুষ্টি জোগাতে ও সুস্বাস্থ্য বজায় রাখতে সহায়ক এই উপাদানগুলি।

>ধনেপাতায় রয়েছে ভিটামিন সি। এই ভিটামিন শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। তাই নিয়মিত ধনেপাতা খাওয়া উচিত। এর ফলে শরীর নানান ধরনের ভাইরাস ও রোগের মোকাবিলায় শক্তি সঞ্চয় করে।

>হজম শক্তি উন্নত করে ধনেপাতা। প্রতিদিন ধনেপাতা খেলে হজম প্রক্রিয়া ঠিক থাকে। এর ফলে গ্যাস, কোষ্ঠকাঠিন্য ও বদহজমের মতো সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

>রক্তে শর্করার পরিমাণ কম করতে সাহায্য করে ধনেপাতা। নিয়মিত ধনেপাতা খেলে ইনসুলিনের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করা যায়।

>শরীরে রক্তের পরিমাণ বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে ধনেপাতা। ধনেপাতায় প্রচুর পরিমাণে আয়রন থাকায় অ্যানিমিয়া দূর করতে সাহায্য করে এটি। এর পাশাপাশি এতে প্রচুর অ্যান্টি অক্সিডেন্ট, মিনারেল, ভিটামিন এ ও সি থাকে। এ কারণে ক্যান্সার থেকেও স্বস্তি পাওয়া যায়।

>শুধু খাবারের স্বাদ বৃদ্ধিই নয়, বরং কোলেস্টেরলের স্তর কম করতেও সাহায্য করে ধনেপাতা।

>প্রস্রাব করার সময় জ্বালা অনুভব করলে ধনেপাতার পানি পান করলে স্বস্তি পেতে পারেন।

>নানান সমীক্ষা থেকে জানা গিয়েছে যে, ধনেপাতায় কোয়েরসেটিন নামক যৌগর পাশাপাশি বিভিন্ন ফ্ল্যাভনয়েডস রয়েছে। এটি কম ঘনত্বের লাইপোপ্রোটিন অর্থাৎ, এলডিএল কম করেত সাহায্য করে, যার ফলে হৃদযন্ত্র সুস্থ থাকে।

>ধনে পাতার সাহায্যে কিছু কিছু সংক্রমণের হাত থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। জানা গিয়েছে, ধনে পাতার তেলে অ্যান্টিফাঙ্গাল ও অ্যন্টি অ্যাডহেরেন্ট গুণ রয়েছে। যা বিভিন্ন ধরনের ফাঙ্গাল ইনফেকশানের সমস্যা কম করতে পারে। পাশাপাশি এটি দাঁতের সংক্রমণও দূর করে।

>একটি সমীক্ষা থেকে জানা গিয়েছে, ধনেপাতা ব্যবহার করে মুখের দুর্গন্ধ দূর করা যায়।

>ধনে পাতায় অ্যান্টি অক্সিডেন্ট ও অ্যান্টি ইনফ্ল্যামেটারি গুণ রয়েছে। এই উপাদান গুলো ত্বককে অতিবেগুণী রশ্মির হাত থেকে বাঁচায় এবং ঘা সারিয়ে তুলতে সাহায্য করে। পাশাপাশি ময়শ্চারাইজার হিসেবেও ধনেপাতা ব্যবহার করা যেতে পারে।

সূত্র: এই সময়

বৈশাখী নিউজ/ এপি