পাল্টাপাল্টি সামরিক মহড়া আমেরিকা-রাশিয়ার

রাশিয়ার সঙ্গে যখন আমেরিকা প্রচণ্ড রকমের সামরিক উত্তেজনা চলছে তখন ভূমধ্যসাগরে ন্যাটো সামরিক জোটের মহড়া চালানোর ঘোষণা দিয়েছে পেন্টাগন।

এ ঘোষণার পর মার্কিন নেতৃত্বাধীন ন্যাটো জোটের সঙ্গে রাশিয়ার উত্তেজনা আরো বাড়বে বলে মনে করা হচ্ছে। খবর-পার্সটুডের।

আমেরিকা ও ন্যাটো জোটের এই বিশাল সামরিক মহড়ার বিপরীতে প্রশান্ত মহাসাগর থেকে আটলান্টিক মহাসাগর পর্যন্ত বিশাল জলসীমায় রাশিয়া সামরিক মহড়া চালাবে বলে জানিয়েছে। এই মহড়ায় প্রশান্ত মহাসাগর এবং আটলান্টিক মহাসাগরে মোতায়েন রাশিয়ার সমস্ত নৌবহর যোগ দেবে।
শুক্রবার মার্কিন প্রতিরক্ষা দপ্তর পেন্টাগনের মুখপাত্র জানিয়েছেন, সোমবার থেকে ভূমধ্যসাগরে এই মহড়া শুরু হবে এবং এতে বিমানবাহী রণতরী ইউএসএস হ্যারি ট্রুম্যান অংশ নেবে।

নেপচুন স্ট্রাইক ২২ নামের এই মহড়া আগামী ৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চলবে। এর মধ্যদিয়ে ন্যাটোর যুদ্ধ-সক্ষমতা দেখানো হবে।

জন কিরবি দাবি করেন, ২০২০ সাল থেকে এই মহড়ার প্রস্তুতি চলছে এবং ইউক্রেনে রাশিয়ার সম্ভাব্য আগ্রাসনের সঙ্গে আসন্ন মহড়ার কোনো সম্পর্ক নেই। অবশ্য তিনি একথা অস্বীকার করেন যে, যখন এই মহড়া অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে তখন রাশিয়ার সঙ্গে ন্যাটো জোটের উত্তেজনা চরমে রয়েছে। তারপরেও মিত্রদের সঙ্গে আলোচনা ও পরামর্শ করেই এই মহড়া অনুষ্ঠানের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

এদিকে, ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, গত ১৪ ডিসেম্বর ন্যাটো জোটের যে সামরিক মহড়ার তালিকা প্রকাশ করা হয় তাতে নেপচুন স্ট্রাইক ২২ মহড়ার উল্লেখ নেই।

অন্যদিকে, রাশিয়া বৃহস্পতিবার ঘোষণা করেছে-প্রশান্ত মহাসাগর থেকে আটলান্টিক, আর্কটিক এবং ভূমধ্যসাগরে তারা বিশাল সামরিক মহড়া চালাবে। এই মহড়ায় ১৪০টি যুদ্ধজাহাজ এবং ১০ হাজার সেনা অংশ নেবে। মহড়াটি চলবে জানুয়ারি থেকে ফেব্রুয়ারি সময়ের মধ্যে।

সূত্র: ডয়চে ভেলে।

বৈশাখী নিউজ/ জেপা