নির্বাচনী ফল প্রচারে থাকবে সরকারের মিডিয়া সেন্টার

 

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ফলাফল প্রচারে রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে মিডিয়া সেন্টার খুলবে সরকার। তথ্য অধিদফতরের ব্যবস্থাপনায় আগামী ২৯, ৩০ ও ৩১ ডিসেম্বর এই মিডিয়া সেন্টার ২৪ ঘণ্টা কাজ করবে।

রোববার সচিবালয়ে নির্বাচনকালীন তথ্য মন্ত্রণালয়ের কার্যক্রম নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম এ কথা জানান। আগামী ৩০ ডিসেম্বর জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ করা হবে।

তথ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘নির্বাচনের সময় ফলাফল প্রচার ও নির্বাচন কমিশনের বিভিন্ন সিদ্ধান্তগুলো জানিয়ে দেয়ার জন্য আমরা ২৯, ৩০ ও ৩১ ডিসেম্বর ২৪ ঘণ্টা কাজ করবে এমন একটি মিডিয়া সেন্টার স্থাপন করব। বিটিভিতে নির্বাচন কমিশন থেকে পাওয়া যে ফলাফল প্রচারিত হবে তা সেখানে ডিজিটাল ডিসপ্লে বোর্ডের মাধ্যমে দেখানো হবে।’

রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে এই মিডিয়া সেন্টার স্থাপন করা হবে জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘মিডিয়া সেন্টারে প্রতি শিফটে ৭ জন করে কর্মকর্তা থাকবেন, প্রতিদিন শিফট হবে তিনটি।’

‘নির্বাচন কমিশন থেকে না পেলে আমরা কোনো তথ্য দেব না। ২৯ ডিসেম্বর সকাল থেকেই মিডিয়া সেন্টার কার্যক্রম শুরু করবে’ বলেন তারানা হালিম।

তিনি বলেন, ‘তথ্য মন্ত্রণালয় থেকে বিভিন্ন দূতাবাসগুলোতে চিঠি পাঠানোর মাধ্যমে মিডিয়া সেন্টারের বিষয়ে অবহিত করব। যে কোনো তথ্যের জন্য তারাও মিডিয়া সেন্টারে যোগাযোগ করতে পারবেন। আমরা বিশ্বাস করি এতে বিদেশি পর্যবেক্ষকরা উপকৃত হবেন।’

এছাড়া বিমানবন্দরে একটি বুথে তথ্য অধিদফতরের কর্মকর্তারা থাকবেন জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘নির্বাচন কেন্দ্রীক যে পর্যবেক্ষকরা আসবেন তারা তাদের প্রাথমিক তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করবেন।’

ব্যাপক সংখ্যক বিদেশি পর্যবেক্ষক আগামী নির্বাচনে থাকবেন বলেও জানান তারানা হালিম।

বিটিভি এবং বাংলাদেশ বেতারে নির্বাচনের ফলাফল সরাসরি ৩০ মিনিট পর পর বা প্রয়োজন অনুসারে বিশেষ বুলেটিন আকারে সম্প্রচার করবে বলেও জানান তথ্য প্রতিমন্ত্রী।

তিনি আরও বলেন, ‘এছাড়া ২৯, ৩০ ও ৩১ ডিসেম্বর ২৪ ঘণ্টা তিনটি শিফটে ৯ জন করে কর্মী গুজব শনাক্তকরণ ও অবহিতকরণ সেলে দায়িত্ব পালন করবেন। যাতে নির্বাচন কেন্দ্রীক গুজবের যে বিষয়গুলো আছে সেগুলো আমরা যাতে মিডিয়াকে অবহিত করতে পারি।’

নির্বাচন কমিশন এবার সংবাদ সংগ্রহের ক্ষেত্রে সংবাদকর্মীদের মোটরসাইকেল চালানোর ওপরও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে- এ বিষয়ে জানতে চাইলে তথ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন (ইসি) একটি স্বাধীন সংস্থা। তাদের বিষয়ে কোনো কিছু বলার এখতিয়ার আমার নেই। বিষয়টির মধ্যে আমি প্রবেশও করতে চাই না। ইসির সিদ্ধান্ত আমাদের মাথা পেতে নিতে হবে।’