কারও বিভ্রান্তিতে, নিজেরা বিভ্রান্ত হবেন না: কাদের

দেশে করোনাভাইরাস সংকটে জনগণকে ধৈর্যহারা না হওয়ার পরামর্শ দিয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, “কারও বিভ্রান্তিতে, নিজেরা বিভ্রান্ত হবেন না।”

শুক্রবার দুপুরে সংসদ ভবন এলাকায় সরকারি বাসভবনে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ আহ্বান জানান ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, “করানাভাইরাস সংকটের কারণে সারা বিশ্ব এক ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে চলছে। জাতিসংঘের মতে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর পৃথিবীতে এমন ভয়াবহ সংকট কখনও সৃষ্টি হয় নি। কবে যে এই সংকটের শেষ হবে এটা এখনও কেউ সঠিক ভাবে বলতে পারছেন না। এক অনিশ্চয়তার মধ্য দিয়ে সারাবিশ্ব এগিয়ে চলছে। এক ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি দেশে দেশে সংকট আরও ঘনিভুত করছে।

“বাংলাদেশে আমরা আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এই পরিস্থিতি অত্যান্ত ধৈর্য ও সাহসিকতার সঙ্গে মোকাবিলা করে যাচ্ছি। সরকার নিষ্ঠার সঙ্গে যথা সময়ে যথা দায়িত্ব পালনে করে যাচ্ছেন।প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ অনুযায়ী প্রশাসন সেনাবাহিনী, আমাদের জনপ্রতিনিধিগণ আমাদের পার্টির নেতা কর্মীরা, এবং দেশের বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ, সামর্থবান বিত্তবান মানুষ সভাই এগিয়ে আসছেন।আমাদের স্বাস্থ্য কর্মী ডাক্তার নার্সদের উপর আরোপিত দায়িত্ব যথাযত ভাবে পালন করে যাচ্ছেন। কেউ দায়িত্ব পালনে কোন প্রকার অবহেলা করছেন না।

“যাতে এই সংকটকে জনমতকে কেউ বিভ্রান্ত করতে না পারে। মানুষ যাতে কষ্ট না পায়, সে ব্যপারে সভাইকে সতর্ক ও সচেষ্ট থাকতে হবে। কোন অবস্থাতেই ধৈর্যহারা হওয়া যাবে না।কারও বিভ্রান্তিতে কেউ যেন নিজেরা বিভ্রান্ত না হয়।”

একটি মহল সংকটকালীণ সময়েও জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টির অশুভ পায়তারায় লিপ্ত রয়েছে বলেও দাবি করেন ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, “এই সংকট সন্ধিক্ষনেও এক শ্রেনীর মতলববাজ মহল দেশে আজকে গুজব সৃষ্টির মাধ্যমে চরিত্রহনন, ফেইসবুকে অপপ্রচার করে জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টির অশুভ পায়তারায় লিপ্ত হয়েছে।

“এই মতলববাজ মহলটি দেশের এই সংকটময় মূহূর্তেও অশুভ খেলায় মেতে উঠেছে। এদের ব্যপারে আমাদের সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে। জনগণকে সতর্ক থাকতে হবে। আমাদের পার্টির নেতাকর্মীদের সচেতনতায় প্রচার করতে হবে। যাতে করে জণগন বিভ্রান্ত না হয়।নেতাকর্মীদের সর্বদা সতর্ক পাহারায় থাকতে হবে।”

দেশে যথেষ্ট খাদ্যসামগ্রী মজুদ আছে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, “দেশে যথেষ্ট খাদ্যসামগ্রী মজুদ আছে, এছাড়া করোনাভাইরাস মোকাবেলায় ২৫০ কোটি টাকা বরাদ্ধ দেওয়া হয়েছে, নিন্ম আয়ের মানুষের ‘ঘরে ফেরা’ কর্মসূচির আওতায় নিজ নিজ গ্রামে সহায়তা পৌছে দেয়া হবে।”

এসময় করোনাভাইরাস মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া একত্রিশ দফা নির্দেশনা মেনে চলার আহ্বান জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, “এই সংকটময় মূহুর্তে আমাদের দেশের দায়িত্বশীল সভা ই যার যার দায়িত্ব পালনে সচেষ্ট। আমরা আশা করি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একত্রিশ দফা নির্দেশ নামা মেনে সভাইকে যার যার দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানাচ্ছি।”