ছেলেকে খুন মাস্ক না পড়ায়

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের প্রকোপ থেকে বাঁচার উপায় হলো সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা। ঘরে অবস্থান করা। একান্ত প্রয়োজনে বাইরে বের হলে মাস্ক ব্যবহার করা। করোনা প্রতিরোধে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এসব বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। তবে এসব বিধি-নিষেধের একটি অমান্য করায় নিজের ছেলেকে খুন করল বাবা। মৃতের নাম শীর্ষেন্দু মল্লিক (৪৫)। লকডাউনের মধ্যেই গতকাল শনিবার এ ঘটনা ঘটল ভারতের উত্তর কলকাতায়।

জানা গেছে, ছেলেকে খুন করার পর স্থানীয় শ্যামপুকুর থানায় এসে আত্মসমর্পণ করেন ৭৮ বছরের এক বৃদ্ধ বাবা। নিজেকে বংশীধর মল্লিক বলে পরিচয় দিয়ে তিনি জানান, ছেলেকে খুন করে এসেছি! আত্মসমর্পণ করতে চাই।

ওই বৃদ্ধের এসব কথা শুনে চমকে ওঠেন পুলিশ কমকর্তারা। পরে বংশীধরের বাড়িতে গিয়ে তার ছেলের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

পুলিশ জানিয়েছে, উত্তর কলকাতার শোভাবাজার লেনের বাসিন্দা ওই বৃদ্ধ জানান- বার বার বলা সত্বেও মাস্ক না পড়ে বাড়ির বাইরে বেরিয়েছিল ছেলে শীর্ষেন্দু। তা থেকে বিতর্কের জেরেই ছেলেকে খুন করেছেন তিনি।

এ ব্যাপারে কলকাতার গোয়েন্দা প্রধান মুলরিধর শর্মা বলেন, ‘বাবা বলছেন মাস্ক পরা নিয়ে বসচার জেরে ছেলেকে খুন করেছেন তিনি। কিন্তু আসল কারণ তদন্ত করে দেখতে হবে।’

এদিকে জানা গেছে, অবসরপ্রাপ্ত ওই সরকারি কর্মী আর্থিক অনটনে ভুগছিলেন। দীর্ঘদিন অসুস্থ হয়ে শয্যাশায়ী তাঁর স্ত্রী। সেসব থেকেই ছেলেকে খুন করেছেন কি না তা খতিয়ে দেখছেন তদন্তকারীরা।

সূত্র : হিন্দুস্তান টাইম

বৈশাখী নিউজএপি