পাকিস্তানের শত্রুরা সেনাবাহিনীকে আক্রমণ করছে : ইমরান খান

সদ্যই পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রিত্ব হারিয়েছেন তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) দলের প্রধান ইমরান খান। তবে ক্ষমতাচ্যুত হলেও নেটমাধ্যমে সাবেক এই ক্রিকেটারের জনপ্রিয়তায় একটুও ভাটা পড়েনি। বুধবার রাতে পিটিআই আয়োজিত ইমরান খানের টুইটারের ভার্চুয়াল অধিবেশনে রেকর্ড সংখ্যক মানুষের যোগদান যেন সেটাই প্রমাণ করেছে। পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম জিও নিউজ বৃহস্পতিবার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

টুইটারের ওই নতুন ফিচারে লাইভ অডিওতে অংশ নেওয়া যায়। ইমরানের সাবেক ফোকাল পারসন ডক্টর আরসালান খালিদ, জিবরান ইলিয়াস এবং মইজ উর রহমান আয়োজিত এই অধিবেশনে সারা বিশ্ব থেকে প্রায় অর্ধ মিলিয়ন মানুষ যোগ দেন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম পরামর্শক এবং শিল্প বিশ্লেষক ম্যাট নাভারাও এই অধিবেশনে ব্যাপক মানুষের উপস্থিতি লক্ষ্য করে একে ভার্চুয়াল জলসা বলে অভিহিত করেছেন।

ওই অধিবেশনে উপস্থিতদের সংখ্যার একটি স্ক্রিনশট শেয়ার করে এটা টুইটার স্পেসের নতুন রেকর্ড কী না সেই প্রশ্ন তোলেন।

ওই অধিবেশনে অংশগ্রহণকারীরা ইমরান খানকে সরাসরি প্রশ্ন করেন। এ সময় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পাকিস্তান সেনাবাহিনী সম্পর্কে ছড়ানো কয়েকটি মিম সম্পর্কে প্রশ্ন করা হয়। ইমরান খান জানান, তিনি এখন টেলিভিশন দেখেন না এবং পত্রিকা পড়ার সময় পান না। তবে তিনি সামাজিকমাধ্যমে ওই বিষয়গুলো দেখেছেন।

ইমরান খান বলেন, পাকিস্তানের শত্রুরা সেনাবাহিনীকে আক্রমণ করছে এবং নওয়াজ শরিফ এবং আসিফ আলি জারদারির শাসনের সময় সেনাবাহিনীকে অবমূল্যায়নের চেষ্টা করা হয়েছে। নওয়াজ যখন বিদেশ ছিলেন তখন তিনি সেনাপ্রধানকে আক্রমণ করেছেন। বিষয়টি সেনাবাহিনী এবং প্রত্যেকেই জানে।

সেনাবাহিনী না থাকলে এ মুহূর্তে পাকিস্তান তিন টুকরো হয়ে যাবে বলে মন্তব্য করেন ইমরান খান।

ইমরান খান বলেছেন, দেশের যুবকরা যদি ‘বিদেশি ষড়যন্ত্র’ মেনে নেয়, তবে ভবিষ্যতে পুরো প্রজন্ম ধনী দেশের ভিসা পেতে চাইবে। যদি এ সরকারের মতো দুর্নীতিবাজরা ক্ষমতায় আসে, তা হলে কোনো ভবিষ্যৎ নাই।

বৈশাখী নিউজ/ ইডি