লিবিয়ায় আটকদের ফেরত আনা হবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

লিবিয়ায় আটক বাংলাদেশিদের ফেরত আনা হবে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন। তবে অবৈধ, অমর্যাদাকর বিপজ্জনক এমন যাত্রা সবার আগে বন্ধ করা দরকার বলে জানান তিনি।

এতটি গণমাধ্যমের সঙ্গে ফোনালাপে তিনি বলেন, ‘আমরা অবশ্যই তাদের ফিরিয়ে আনব। কিন্তু আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার কান্ট্রিডিরেক্টর আমার সঙ্গে মঙ্গলবার দেখা করে বলে গেলেন, যাদের লিবিয়া থেকে ফেরত আনা হয়, তারা আবারও একই পথ অবলম্বন করেন। এটা বন্ধ করা দরকার।

যদিও এমন প্রবণতা আগের চেয়ে কমে এসেছে।’তিনি বলেন, ‘২০১৫ সালে লিবিয়ায় বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিয়োগ বন্ধ ছিল। এখন সেটা আবার চালু হয়েছে। বেশির ভাগ স্কিল্ড লোকজন হাজার হাজার ডলার বেতনের চাকরি নিয়ে সেখানে যাচ্ছেন। যদিও সেখানে অস্থিরতা চলছে। দুই অংশে দুই সরকার। তবু তাদের কিছু থেমে নেই।’

লিবিয়ায় অবৈধ যাত্রা থামাতে তিনি জনসচেতনতা তৈরিতে জনগণ ও গণমাধ্যমের সহায়তা চেয়েছেন।

এদিকে পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন জানান, ‘লিবিয়া হয়ে সমুদ্রে ইউরোপ যাত্রা বন্ধে ক্রাস প্রোগ্রাম নেয়ার চিন্তা করছে সরকার। তিনিও এ জন্য গণমাধ্যমের সহায়তা চেয়েছেন।

এদিকে ভূমধ্যসাগরের লিবিয়া উপকূল থেকে উদ্ধার হওয়া ৫ শতাধিক বাংলাদেশির মধ্যে ৪০০ জনের পরিচয় নিশ্চিত হয়েছে বাংলাদেশ দূতাবাস।

লিবিয়ায় বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল এস এম শামিম-উজ জামান বলেন, ‘দূতাবাসের তৈরি করা টিম আটক ব্যক্তিদের সঙ্গে ডিটেনশন সেন্টারে গিয়ে কথা বলেছে। তারা দুই দিনে প্রায় ৪০০ জনের ইন্টারভিউ নিয়েছেন।

‘তাদের সঙ্গে কথা বলে এটা নিশ্চিত হওয়া গেছে যে, তারা বাংলাদেশের নাগরিক। যেহেতু তারা অবৈধভাবে গেছেন। ফলে তাদের কাছে পাসপোর্ট বা অন্য কোনো ডকুমেন্ট নেই।’

রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘এর মধ্যে ২৪৪ জন দেশে ফিরতে রাজি। তাদের রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হয়েছে।’

আইওএমের মাধ্যমে তাদের যত দ্রুত সম্ভব দেশে ফেরানো হবে। ওই দলে আরও প্রায় শতাধিক বাংলাদেশি (ডিটেনশন সেন্টারে) রয়েছেন। দু-এক দিনের মধ্যে তাদের সাক্ষাৎকার নেবে দূতাবাস টিম। সেখানেও দেশে ফিরতে ইচ্ছুক বাংলাদেশি পাওয়া যাবে।

এদিকে উদ্ধার ও আটক সবাই সুস্থ আছেন বলে জানিয়েছে ত্রিপোলিস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস। ঢাকায় পাঠানো দূতাবাসের ‘লিবিয়ায় উপকূল থেকে ৫০০ জন বাংলাদেশি উদ্ধার’ শীর্ষক প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘উপযুক্ত বিষয়ের পরিপ্রেক্ষিতে মহোদয়ের সদয় অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, লিবিয়ার জাওয়ারিখ উপকূল থেকে একটি ট্রলারে করে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপ যাত্রাকালে দেশটির কোস্ট গার্ড ৫০০ বাংলাদেশি নাগরিকসহ ৬০০ অভিবাসীকে উদ্ধার করে।

দূতাবাস থেকে তাৎক্ষণিকভাবে লিবিয়ার অভিবাসন অধিদপ্তর এবং আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থাসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। বিভিন্ন মাধ্যম থেকে প্রাপ্ত তথ্য মতে জানা যায়, গত ২৩ এপ্রিল লিবিয়ার উপকূল থেকে উদ্ধারকৃত অভিবাসীদের একটি নৌকা থেকে ৫০০ বাংলাদেশিসহ ৬০০ অভিবাসীকে উদ্ধার করা হয়েছে এবং তারা সবাই শারীরিকভাবে সুস্থ আছে।’

তাদের বর্তমানে ত্রিপোলি শহরের তারিক মাতার ডিটেনশন সেন্টারে রাখা হয়েছে। উদ্ধারকৃত ওই বাংলাদেশিদের প্রয়োজনীয় আইনগত সহায়তা দেয়া এবং স্বেচ্ছায় দেশে ফেরত যেতে আগ্রহীদের প্রয়োজনে আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার সহায়তায় দেশে পাঠাতে দূতাবাসের পক্ষ থেকে প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে।

এই লক্ষ্যে দূতাবাস থেকে লিবিয়ার অভিবাসন অধিদপ্তর, রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি এবং আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখা হচ্ছে। লিবিয়ার ডিটেনশন সেন্টার কর্তৃপক্ষের অনুমতি সাপেক্ষে উদ্ধারকৃত বাংলাদেশিদের সঙ্গে সাক্ষাতের প্রচেষ্টা চলছে।