হঠাৎ রাশিয়ার ২ নদীর পানি লাল!

রাশিয়ার নরস্লিক নামের শহরের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া দুটি নদীর পানি হঠাৎ লাল হয়ে যায়। এর ফলে আতঙ্ক ছড়িয়েছে বিশ্বজুড়ে। কেন এই নদী হঠাৎ লাল হয়ে গেল?‌ কী এমন ঘটেছে? এরকম অনেক প্রশ্ন দেখা দেয় মানুষের মনে। তবে‌ খবর পাওয়া গেছে, স্থানীয় একটি পাওয়ার প্ল্যান্ট থেকে ২১ হাজার টন ডিজেল ছড়িয়ে পড়ে নদী দুটিতে। এই কারণেই নদীর পানির রং হঠাৎ এমন লাল হয়ে গেছে। খবর নিউজ এইটটিনের।

জানা যায়, নরস্লিক শহরের একটি থার্মাল পাওয়ার স্টেশনে বিশালাকার একটি জ্বালানির ট্যাংকার ফেটে এমন ঘটনা ঘটেছে। এটি সুমেরু বৃত্তের ১৮০ মিটার ওপরে অবস্থিত। খনন কাজের সঙ্গে যুক্ত একটি সংস্থা ডিজেল রেখেছিল বিরাট ট্যাংকে। সেই ট্যাংকে হঠাৎ একটি গাড়ি গিয়ে ধাক্কা মারে। তারপর সেখান থেকেই নাকি প্রবল বেগে তেল ছড়িয়েছে। কিন্তু সেই খবর সংস্থার কাছে পৌঁছাতে অনেকটাই দেরি হয়েছিল। ততক্ষণে ছড়িয়ে পড়েছে ডিজেল।

বেশিরভাগ ডিজেল মিশে যায় নদীতে। তাইমিরশকি দলগ্যানোর জেলার একটি রিসার্ভারেরও কিছুটা ডিজেল মিশে যায় এর সঙ্গে। ফলে আম্বার্নোয়া ও দাদিকান নদীতে মিশেছে বেশিরভাগ পেট্রোল। ফলে ওই নদীর জলের রং লাল হয়ে যায়।

রাশিয়ার রাষ্ট্রপ্রধান পুতিনের কাছে এই খবর পৌঁছানোর আগেই ১ লাখ বর্গ কিলোমিটার এলাকা এই তেলে ঢেকে যায়। এ নিয়ে বুধবার স্থানীয় গভর্নরের সঙ্গে কথা বলেন পুতিন।

পরিস্থিতি সামাল দিতে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন সুমেরু অঞ্চলে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছেন। পরিবেশ বিশেষজ্ঞদের ধারণা, এ কারণে ওই অঞ্চলে দীর্ঘময়াদী ক্ষতি হবে।

গভর্নর বলেন, সোশ্যাল মিডিয়া থেকে তিনি এই বিষয়ে খবর পেয়েছেন। দু’‌সপ্তাহের মধ্যে পরিস্থিতি সামলানোর আশ্বাসের কথা জানান তিনি। পরে, বুধবারই প্রশাসন জানায়, এই সংস্থার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হবে।

স্থানীয়দের মধ্যে কেউ কেউ বলেন, পৃথিবীর ইতিহাসে কোনও সংস্থার ট্যাঙ্ক লিকের যত ঘটনা আছে, তার মধ্যে এটি সবচেয়ে ভয়ানক। এরপরই জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয় ওই শহরটিতে।

বৈশাখী নিউজজেপা