সূচকের উত্থানে লেনদেন সমাপ্ত শেয়ারবাজারে

দেশের প্রধান শেয়ারবাজারে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস রোববার (২৪ এপ্রিল) সূচকের উত্থানে লেনদেন শেষ হয়েছে। এদিন সকালে লেনদেনের শুরু থেকে সূচকের ঊর্ধ্বমুখী লক্ষ্য করা গেছে, যা লেনদেন শেষে অব্যাহত ছিল।

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) গৃহীত পদক্ষেপে পুঁজিবাজার স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে এসেছে। ফলে পুঁজিবাজারে টানা চার কার্যদিবস সূচকের উত্থানে লেনদেন শেষ হয়েছে।

 

এদিন ডিএসই ও সিএসইতে আগের কার্যদিবসের চেয়ে টাকার পরিমাণে লেনদেন বেড়ছে। তবে গত এক বছরের হিসাবে ডিএসইতে লেনদেনে অবনতি হচ্ছে।

একইসঙ্গে এদিন ডিএসই ও সিএসইতে শেয়ারবাজারে লেনদেনে অংশ নেওয়া অধিকাংশ কোম্পানির শেয়ার এবং মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিটের দাম বেড়েছে।

রোববার ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ২০.৮৭ পয়েন্ট বা ০.৩১ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ হাজার ৬৮৩.২৩ পয়েন্টে।   ডিএসইর অপর সূচকগুলোর মধ্যে ডিএসই-৩০ সূচক ৮.০৫ পয়েন্ট বা ০.৩২ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে দুই হাজার ৪৮৬.১২ পয়েন্টে।  তবে শরিয়াহ সূচক ৩.০৮ পয়েন্ট বা ০.২১ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৪৬১.৫৪ পয়েন্টে।

 

ডিএসইতে এদিন টাকার পরিমাণে লেনদেন হয়েছে ৮৯৫ কোটি ৮৪ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট, যা আগের কার্যদিবস থেকে ১৪১ কোটি ৭৭ লাখ টাকা বেশি।

ডিএসইতে ৩৮১টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ২০০টির বা ৫২.৪৯ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর বেড়েছে।  দর কমেছে ১৪২টির বা ৩৭.২৭ শতাংশের এবং ৩৯টি বা ১০.২৪ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর অপরিবর্তিত রয়েছে।

অপর শেয়ারবাজার সিএসইর সার্বিক সূচক সিএএসপিআই এদিন ৫৪.৮৩ পয়েন্ট বা ০.২৭ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৯ হাজার ৬৪৮.২৫ পয়েন্টে। এদিন সিএসইতে হাত বদল হওয়া ২৮৯টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ার দর বেড়েছে ১৪৮টির, কমেছে ১০৪টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৭টির দর। রোববার সিএসইতে ৪০ কোটি ৪৪ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে, যা আগের কার্যদিবস থেকে ৪ কোটি টাকা বেশি।

বৈশাখী নিউজ/ ইডি