আল-আকসা মসজিদে ঈদ জামাতে মুসল্লির ঢল

পবিত্র মসজিদ আল-আকসায় ঈদের নামাজের মধ্য দিয়ে উৎসব শুরু করেন ফিলিস্তিনিরা। টানা কয়েকদিনের অস্থিরতার পর ঈদুল ফিতরের নামাজ অনুষ্ঠিত হয় মসজিদটিতে। এতে অংশ নেন লাখো মুসল্লি।

নামাজের পর যেন উৎসব নেমে আসে আল-আকসা প্রাঙ্গণে। যে যার মতো করে আনন্দ ভাগ করে নেন একে অপরের সঙ্গে। দেখে মনে হবে যেন সব সংঘাত বন্ধ হয়ে গেছে।

সোমবার (২ মে) সকালেই ইরাকের রাজধানী বাগদাদে হয় ঈদুল ফিতরের প্রধান জামাত। দুই বছর পর একসঙ্গে নামাজ আদায় করতে পেরে খুশি স্থানীয়রা। তারা বলেন, এই ঈদ অন্যবারের চেয়ে আলাদা। এবার কোনো ধরনের বিধিনিষেধ মানতে হচ্ছে না।

মধ্যপ্রাচ্যের আরেক দেশ লেবাননেও উদ্‌যাপিত হয়েছে পবিত্র ঈদুল ফিতর। রাজধানী বৈরুতে প্রধান জামাতে অংশ নিয়ে দেশের উন্নতি কামনা করেছেন অনেকে। স্থানীয় এক বাসিন্দা বলেন, ঈদের যে আনন্দ সেটা এবার আমরা পাচ্ছি না। এখানে কেউ শান্তিতে নেই। সবাই ভবিষ্যৎ নিয়ে অনেক শঙ্কিত।

ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নিয়েছে মিসরের মানুষ। এ ছাড়াও ঈদ উদ্‌যাপিত হয়েছে ইরান, তুরস্ক, বাহরাইনসহ অন্যান্য দেশেও।

করোনাকাল কাটিয়ে ইউরোপ ও এশিয়ার বিভিন্ন দেশে উদ্‌যাপিত হচ্ছে পবিত্র ঈদুল ফিতর। বিধিনিষেধ না থাকায় এবার ঈদের জামাতে শামিল হন সর্বস্তরের মানুষ। সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে অন্যান্য দেশের মতো অস্ট্রেলিয়াতেও ঈদ আনন্দে মাতোয়ারা হন প্রবাসী বাংলাদেশিরা।

করোনার বিধিনিষেধ কাটিয়ে দীর্ঘদিন পর যথাযোগ্য মর্যাদায় পবিত্র ঈদুল ফিতর উদ্‌যাপিত হয় বিশ্বের সবচেয়ে বড় মুসলিম রাষ্ট্র ইন্দোনেশিয়ায়। প্রায় দুই বছরের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে এবার দেশটির বিভিন্ন মসজিদে ঈদের জামাতে শামিল হন সর্বস্তরের মানুষ। দেশটির প্রধান ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয় রাজধানী জাকার্তার আল আজহার মসজিদে। অংশ নেন লাখো মুসল্লি।

ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পবিত্র ঈদুল ফিতর উদ্‌যাপন হচ্ছে মালয়েশিয়াতেও। স্থানীয় সময় সোমবার (০২ মে) সকাল ৮টায় কুয়ালালামপুরসহ বিভিন্ন এলাকার মসজিদগুলোয় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

করোনা সংকট কাটিয়ে দীর্ঘদিন পর স্থানীয়দের পাশাপাশি প্রবাসী বাংলাদেশিরাও উৎসবমুখর পরিবেশে ঈদ উদ্‌যাপন করছেন। বিধিনিষেধ না থাকায় মসজিদগুলোর ঈদের জামাতে ছিল প্রবাসীদের উপচেপড়া ভিড়।

বৈশাখী নিউজ/ জেপা