যে বয়সী পুরুষের সন্তান জন্ম দেয়ার ক্ষমতা বেশি?

পুরুষ যেকোন বয়সেই সন্তান জন্ম দিতে পারে- এমন একটা ধারণা অনেকের মনেই রয়েছে। তাদের ধারণা সন্তান জন্ম দেওয়ার ক্ষেত্রে পুরুষের বয়স কোন বিষয়ই নয়। কিন্তু বাস্তবে এমন ধারণা একেবারেই ঠিক নয়। সন্তান জন্মের ক্ষেত্রে যেমন মেয়েদের বয়স গুরুত্বপূর্ণ, ঠিক তেমনি পুরুষেরও। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে পুরুষের শুক্রাণুর সংখ্যা ও গুণগত মান কমতে থাকে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, পুরুষের ক্ষেত্রে ২৫ থেকে ৩০ বছর বয়স হল পিতা হওয়ার আদর্শ সময়। তবে এ কথাও ঠিক যে, ৫০ বছর বা তার বেশি বয়সী পুরুষও সন্তান জন্ম দেওয়ার ক্ষমতা রাখেন।

গিনেস বুক রেকর্ডসের মতে, ৯২ বছর বয়সী এক পুরুষ সন্তানের জন্ম দিতে সক্ষম হয়েছেন। তবে বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গিয়েছে, ৪০ বছরের পর পুরুষদের ক্ষেত্রেও সন্তান জন্ম দেওয়ার ক্ষমতা কমে যায়।

মহিলাদের ক্ষেত্রে ঋতুবন্ধের পরে সন্তানধারণের কোনও সম্ভাবনাই থাকে না। কিন্তু ছেলেদের শরীরে শুক্রাণু তৈরির প্রক্রিয়া কখনও বন্ধ হয় না। কিন্তু তার মানে এই নয় যে, তাদের মহিলাদের মতো ‘বায়োলজিক্যাল ক্লক’ নেই।

পুরুষের বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে তাদের শুক্রাণুগুলো জেনেটিক মিউটেশনের মধ্য দিয়ে যায়। ফলে শুক্রাণুর ডিএনএ ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। পুরুষের সন্তান জন্ম দেওয়ার ক্ষমতা প্রভাবিত হয়। শুধু তা-ই নয়, সেই বয়সে যদি তিনি সন্তানের জন্ম দিয়েও ফেলেন, তা হলে শিশুর স্বাস্থ্যের ক্ষেত্রেও খারাপ প্রভাব পড়তে পারে। এ ক্ষেত্রে শিশুদের স্নায়ুতন্ত্রজনিত রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়।

‘জার্নাল অব এপিডেমিওলজি অ্যান্ড কমিউনিটি হেলথ’-এ প্রকাশিত একটি গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে, ২৫ বছর বয়সের আগে বাবা হওয়া তাদের স্বাস্থ্যের গুরুতর পরিণতি ডেকে আনতে পারে, এমনকি মধ্যবয়সে অকালমৃত্যুও হতে পারে।

বাড়তি বয়সের সঙ্গে সঙ্গে জীবনধারায় অনিয়ম পুরুষদের বন্ধ্যত্বের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস, ধূমপান, মদ্যপান, মানসিক চাপ, বিভিন্ন প্রকার ওষুধ, স্থূলতা— পুরুষের বন্ধ্যত্বের জন্য সবচেয়ে বেশি দায়ী।

সুত্র: আনন্দবাজার অনলাইন

বৈশাখী নিউজ/ জেপা