এশিয়া কাপ আয়োজনের খবর নেই বিসিবি’র কাছে

আগামী ২৭ আগস্ট থেকে ১১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত শ্রীলঙ্কায় এবারের এশিয়া কাপ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু হঠাৎ করেই হুমকির মুখে পড়ছে আসরটি। শ্রীলঙ্কায় রাজনৈতিক সংকটের কারণে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে দেশটিতে এশিয়া কাপ খেলতে যেতে রাজি নয় ভারতীয় দল। আর এ কারণেই এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল (এসিসি) থেকে নাকি বাংলাদেশকে এশিয়া কাপ আয়োজনের জন্য প্রস্তুত থাকার কথা বলা হয়েছে।

কলকাতার কিছু দৈনিক এরকম খবর প্রকাশ করলে সেই সূত্র ধরে বাংলাদেশের গণমাধ্যমও সংবাদটি সামনে আনে। কিন্তু ভারতীয় মিডিয়ার এই খবর অস্বীকার করেছে বিসিবি। অনেকটা ‘যার বিয়ে তার খবর নেই, পাড়াপড়শির ঘুম নেই’- অবস্থা।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরী গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, এমন কোনো বার্তা তারা এসিসি থেকে পায়নি।

তিনি বলেন, “শ্রীলঙ্কায় যে এশিয়া কাপ হবে না, তেমন কোনো খবর আমাদের জানা নেই। বাংলাদেশকে এশিয়া কাপ আয়োজনের প্রস্তুতি নিতে বলা হয়েছে এ জাতীয় যে খবর ভারতীয় মিডিয়ায় এসেছে সে সম্পর্কেও আমাদের কিছু জানা নেই। কারণ এসিসি থেকে এমন কোনো বার্তা আমরা পায়নি।”

বিসিবির এই ঊধ্বর্তন কর্তার ধারণা হয়তো পুরোনো খবরকেই নতুন করে সামনে আনা হয়েছে। কেননা এশিয়া কাপ আয়োজনের জন্য এর আগে বিসিবি থেকে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু সব আনুষ্ঠানিকতা শেষে শ্রীলঙ্কাতেই এবরের আসর আয়োজনের জন্য চূড়ান্ত করা হয়।

এরই মধ্যে শ্রীলঙ্কায় সফলভাবে অস্ট্রেলিয়া তাদের সফর শেষ করেছে। পাকিস্তান দলও সেখানে পৌঁছেছে পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলার জন্য। ভারতীয় নারী দলও সফর করছে সেখানে। রাজনৈতিক অবস্থার অবনতি হলেও সেখানকার ক্রিকেটে কোনো আঁচ পারেনি। কিন্তু সত্যিই যদি শ্রীলঙ্কার অবস্থা দিন দিন খারাপ হতে থাকে এবং ভারতীয় দল যদি সেখানে সফর করতে অনীহা প্রকাশ করে তাহলে হয়তো বিকল্প ভাবনায় যেতেও পারে এসিসি।

এর আগে ২০১২ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত তিনবার বাংলাদেশে এশিয়া কাপ অনুষ্ঠিত হয়েছিল। এবারের আসরে বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা আর আফগানিস্তানের খেলা নিশ্চিত। এর বাইরে আরব আমিরাত, কুয়েত, সিঙ্গাপুর এবং হংকংয়ের মধ্যকার একটি দল বাছাই পর্ব শেষে মূল পর্বে খেলার সুযোগ পাবে।

বৈশাখী নিউজ/ জেপা