জ্বালানির দাম বাড়ায় আফগানিস্তানে বাড়ছে বাইসাইকেলের চাহিদা

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে সম্প্রতি অসহনীয় পর্যায়ে পৌঁছেছে জ্বালানির দাম। ফলে রাজধানীর বহু মানুষ দৈনন্দিন যাতায়াতের জন্য বাইসাইকেল ব্যবহার শুরু করেছেন।

জ্বালানির দাম বৃদ্ধি, কাবুলের মানুষের ভোগান্তি এবং বাইসাইকেল ব্যবহারের প্রতি আগ্রহী হয়ে উঠার সামগ্রিক চিত্র তুলে ধরে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে আফগানিস্তানের গণমাধ্যম টোলো নিউজ।

খবরে বলা হয়, কাবুলের বহু বাসিন্দা বাইসাইকেল ব্যবহার শুরু করেছেন। কেননা, রাজধানীতে জ্বালানির দাম বৃদ্ধির কারণে ট্যাক্সির ভাড়া বেড়ে গেছে।

সাম্প্রতিক তথ্য অনুযায়ী, কাবুলের ফুয়েল স্টেশনে বর্তমানে এক লিটার জ্বালানি বিক্রি হচ্ছে ৭৬ আফগানিতে। যা পূর্বে ছিল ৩৫ আফগানির মতো। শেষ দুই থেকে তিন মাসে জ্বালানির দাম দ্বিগুণের চেয়ে বেশি বেড়েছে।

কাবুলের বাসিন্দা আব্দুল কাদির বলেন, আমি ট্যাক্সির ভাড়া বহন করতে সক্ষম নই। আমি প্রায় সময় বাইসাইকেল চালিয়ে নিজের দৈনন্দিন কাজ সম্পন্ন করতে বের হই, মাঝেমধ্যে হেঁটে গন্তব্যে যাই।

কাবুলের অপর এক বাসিন্দা মুখতার আহমাদ বলেন, বাইসাইকেল ব্যবহারে খরচ কম। এটি পরিবেশের জন্যও মঙ্গলজনক। কারণ বাইসাইকেল পরিবেশ দূষণ করে না।
স্থানীয় বাসিন্দারা বলছেন, জ্বালানির দাম বেড়ে যাওয়ায় রাজধানীতে ট্যাক্সির ভাড়া বেড়েছে। সাম্প্রতিক অর্থনৈতিক সমস্যার কারণে বাসিন্দারা ট্যাক্সির বাড়তি ভাড়া দেওয়ার ক্ষমতা হারিয়ে ফেলেছেন।

আহমাদ জিয়া নামে কাবুলের এক বাসিন্দা বলেন, জ্বালানির দাম বেড়েছে। আগে যেখানে ট্যাক্সির ভাড়া ছিল ২০ আফগানি সেখানে এখন তারা ভাড়া চাইছে ৩০ থেকে ৫০ আফগানি পর্যন্ত।

মোহাম্মদ উমিদ নামের এক বাসিন্দা বলেন, জ্বালানির দাম বেড়েছে। সঙ্গে বেড়েছে ট্যাক্সির ভাড়াও। আমার সামর্থ্য নেই এসব খরচ বহন করার। তাই আমি একটি বাইসাইকেল কিনে নিয়েছি।

দীর্ঘ ২০ বছর পর আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহার করে নেয় যুক্তরাষ্ট্র। এ প্রক্রিয়ার মধ্যেই কাবুলের নিয়ন্ত্রণ নেয় তালেবান, গঠন করে সরকার। এরপর থেকে বিশ্বের প্রায় সব দেশের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছে আফগানিস্তান। যার কারণে দেশটিতে খাদ্য, জ্বালানি সংকট দেখা দেওয়ায় এগুলোর দাম বেড়ে গেছে।

বৈশাখী নিউজ/ ইডি