নাগাল্যান্ডে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে নিহত ১২ গ্রামবাসী

‘ভুল করে’ সন্ত্রাসবাদী ভেবে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে নিহত হলেন অন্তত ১২ জন গ্রামবাসী। আর তাতেই আবারো উত্তপ্ত নাগাল্যান্ড। সেই রাজ্যে এবার নিরীহ নাগরিকদের উপর গুলি চালানোর অভিযোগ উঠল নিরপত্তারক্ষীদের বিরুদ্ধে। ঘটনায় অন্তত ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতদের মধ্যে এক জওয়ানও রয়েছেন। রাজ্যের মন জেলায় ওটিং গ্রামে সন্ত্রাসদমন অভিযান চালানোর সময় নিরাপত্তাবাহিনী গুলি চালায় বলে অভিযোগ। তাতেই মারা যান ১২ গ্রামবাসী। আহত বহু। মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হয়েছে। ঘটনার পুঙ্খানুপুঙ্খ তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন নাগাল্যান্ডের মুখ্যমন্ত্রী নেইফু রিও। গ্রামটি মায়ানমার সীমান্তে অবস্থিত।

নেইফিউ রিও টুইটারে এই ঘটনার উল্লেখ করে দুঃখপ্রকাশ করেছেন। একে ‘দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা’ বলে উল্লেখ করে নিহতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন। ঘটনার তদন্তে উচ্চ পর্যায়ের বিশেষ দল গঠন করা হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি। এই ঘটনায় শোক প্রকাশ করে টুইট করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। অসম রাইফেলস-এর পক্ষ থেকে এক বিবৃতি জারি করে জানানো হয়েছে, ঘটনার উচ্চপর্যায়ের তদন্ত হবে। দোষীদের আইন অনুযায়ী শাস্তি দেয়া হবে।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে সূত্রে জানা গিয়েছে, শনিবার (৪ নভেম্বর) রাতে নাগাল্যান্ডের মন জেলার ওটিং গ্রামের তিরু-ওটিং রোডে সন্ত্রাস দমন অভিযান চালাচ্ছিলেন নিরাপত্তারক্ষীরা। একটি পিক-আপ ভ্যানে করে ওটিং গ্রামে ফিরছিলেন গ্রামবাসীরা। সে সময় স্থানীয় জঙ্গি সংঠন এনএসসিএন-এর সঙ্গে জড়িত সন্দেহে ‘সন্ত্রাসবাদী’ ভেবে নিরীহ সাধারণ নাগরিকদের লক্ষ্য করে গুলি চালায় নিরাপত্তা বাহিনী। দীর্ঘক্ষণ না ফেরার তাদের খুঁজতে বের হন গ্রামের অন্যান্যরা। একটি ট্রাকের মধ্যে তাদের দেহগুলি উদ্ধার হয়।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ‘সন্ত্রাস দমন অভিযান’ এর সময় স্থানীয় গ্রামবাসীদের প্রতিরোধের মুখে পড়ে নিরাপত্তাবাহিনী গুলি চালাতে শুরু করে। গুলিতে গ্রামবাসীরা মারা যেতে উত্তেজনা বাড়ে। পুলিশের দাবি, ‘আত্মরক্ষার’ জন্য গুলি চালাতে হয়েছে নিরাপত্তা বাহিনীকে। বাহিনীর কয়েকটি গাড়িও পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে।

ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছন খোদ নাগাল্যান্ডের মুখ্যমন্ত্রী নেইফু রিও। এক টুইটে তিনি বলছেন, ওটিং এক দুর্ভাগ্যজনক ঘটনায় বেশ কয়েকজন সাধারণ নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে। এই ঘটনা অত্যন্ত নিন্দনীয়। মৃতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাই। আহতদের দ্রুত আরোগ্য কামনা করি। রিও জানিয়েছেন, দ্রুত বিশেষ তদন্তকারী দল গঠন করে এই ঘটনার পুঙ্খানুপুঙ্খ তদন্ত করা হবে। আইন মেনেই সুবিচার পাবেন আক্রান্তরা। সেই সঙ্গে সব শ্রেণির মানুষের কাছেই শান্তি বজায় রাখার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহও। তিনিও সিট গঠন করে তদন্তের ব্যাপারে আশ্বাস দিয়েছেন।

নাগাল্যান্ড, মণিপুর, অরুণাচল প্রদেশ, মিজোরাম, অসম ও মায়ানমারের বিস্তীর্ণ অঞ্চল নিয়ে নাগা স্বাধীনভূমি বা ‘নাগালিম’ গড়ার ডাক বহুদিনের৷ এই দাবিতে অনেক দিন ধরেই জঙ্গি আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে নাগা বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন এনএসসিএন৷ সংগঠনটি দুভাগ হয়ে যাওয়ার পর মুইভা গোষ্ঠীর সঙ্গে আলোচনা চালাচ্ছে কেন্দ্র৷ কিন্তু অপর অংশটি এখনও জঙ্গি আন্দোলন চালাচ্ছে। সেই জঙ্গি আন্দোলন দমন করতেই ওই এলাকায় তল্লাশি চালাচ্ছিলেন নিরাপত্তারক্ষীরা। সেসময়ই এই ঘটনা ঘটে। সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া, এনডিটিভি

বৈশাখী নিউজ/ জেপা