গরিব হতে পারেন আরো এক কোটি মানুষ: মার্কিন অর্থমন্ত্রী

ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বিশ্বব্যাপী খাবার ও জ্বালানির মূল্য বেড়ে যাওয়াও আরো প্রায় এক কোটি মানুষ দারিদ্র্যের মুখোমুখি হতে পারেন বলে জানিয়েছেন মার্কিন অর্থমন্ত্রী জ্যানেট ইয়েলেন। এ জন্য বিশ্বব্যাংক ও আইএমএফকে তৎপরতা বাড়াতেও বলেন তিনি৷

বিশ্বব্যাংক ও আইএমএফ-এর বসন্তকালীন বৈঠক উপলক্ষ্য আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে মার্কিন অর্থমন্ত্রী বলেন, যুদ্ধ শুরুর আগে বিশ্বের প্রায় ৮০ কোটি মানুষ (মোট জনসংখ্যার প্রায় ১০ শতাংশ) মারাত্মক খাদ্য নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছিলেন৷

তিনি বলেন, বিশ্বব্যাংক ও আইএমএফ অসহায় মানুষদের সহায়তা করতে পারে, কৃষিতে বিনিয়োগ বাড়াতে পারে এবং সারের মতো জরুরি পণ্যের সরবরাহ ঠিক রাখার কৌশল বের করতে পারে৷ খাদ্যদ্রব্যের মূল্য যেন আর না বাড়ে সেজন্য বিভিন্ন দেশের রপ্তানি নিষেধাজ্ঞা এড়িয়ে চলা উচিত বলেও মন্তব্য করেন ইয়েলেন৷

২০০৮ সালে বৈশ্বিক অর্থনৈতিক সংকটের সময় গরিবদের সহায়তায় কৃষিতে বিনিয়োগ বাড়াতে ‘বিশ্ব কৃষি ও খাদ্য নিরাপত্তা সহায়তা’ কর্মসূচি চালু করেছিল জি-টোয়েন্টি৷ বর্তমান পরিস্থিতি মোকাবিলায় ঐ কর্মসূচি অনুসরণ করতে জি-টোয়েন্টিকে পরামর্শ দেন মার্কিন অর্থমন্ত্রী৷

জি-টোয়েন্টির অর্থমন্ত্রীরা বুধবার এক সম্মেলনে অংশ নিচ্ছেন৷ প্রথম সেশনে খাদ্য নিরাপত্তা নিয়ে আলোচনা হবে বলে জানিয়েছেন ইন্দোনেশিয়ার অর্থমন্ত্রী শ্রী মুলিয়ানি ইন্দ্রবতী৷ জি-টোয়েন্টির বর্তমান সভাপতি দেশ ইন্দোনেশিয়া৷

শিল্পোন্নত সাত দেশের জোট জি-সেভেনের বর্তমান সভাপতি দেশ জার্মানির অর্থমন্ত্রী ক্রিস্টিয়ান লিন্ডনারও কৃষিপণ্যের অযৌক্তিক রপ্তানি নিষেধাজ্ঞা এড়িয়ে চলতে দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন৷

বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট ডেভিড ম্যালপ্যাস বলেন, উন্নত দেশগুলোর উচিত উন্নয়নশীল দেশগুলোতে খাদ্য সহায়তা বাড়ানো৷ এছাড়া খাদ্যশস্য, জ্বালানি ও সার উৎপাদন বাড়ানোরও পরামর্শ দেন তিনি৷

সূত্র: ডয়েচে ভেলে

বৈশাখী নিউজ/ ইডি