যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সব যৌথ কার্যক্রম স্থগিত করল চীন

মার্কিন সরকারের উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধি ন্যান্সি পেলোসিকে নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার পর এবার যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে যাবতীয় যৌথ ও সহযোগিতামূলক কার্যক্রম স্থগিত করেছে চীন। শুক্রবার দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে বার্তাসংস্থা রয়টার্স।

জলবায়ু পরিবর্তন, আন্ত সীমান্ত অপরাধ ও মাদক চোরাচালান রোধ, বন্দি বিনিময়সহ মোট আটটি ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সহযোগিতামূলক সম্পর্ক ছিল চীনের। এসবের বাইরে দক্ষিণ চীন সাগর ও প্রশান্ত মহাসাগর অঞ্চলে সামরিক নিরাপত্তা নিয়েও দুই দেশের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের উচ্চ পর্যায়ে সংলাপ চলছিল।

কিন্তু শুক্রবার চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, এখন থেকে অনির্দিষ্ট কালের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে যাবতীয় সহযোগিতামূলক ও যৌথ কার্যক্রম স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশটির সরকার।

মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা রয়টার্সকে বলেন, চীন বার বার আপত্তি জানানো সত্ত্বেও যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি হিসেবে ন্যান্সি পেলোসির গত ২ আগস্ট তাইওয়ান সফরের জেরেই এ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

পূর্ব ও দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার কয়েকটি দেশে সফরের উদ্দেশে সোমবার ওয়াশিংটন থেকে সিঙ্গাপুরে আসেন যুক্তরাষ্ট্রের পার্লামেন্ট কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভসের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি। সিঙ্গাপুর সফর শেষ করে তাইওয়ানে যান তিনি।

মঙ্গলবার স্থানীয় সময় রাত পৌনে ১১টার দিকে রাজধানী তাইপেতে অবতরণ করে পেলোসিকে বহনকারী মার্কিন প্রতিরক্ষা বাহিনীর উড়োজাহাজ।

এদিকে, পেলোসির সফরের আগে থেকে বার বার হুঁশিয়ারি দিয়ে আসা চীন স্বাভাবিকভাবেই এ সফরে ব্যাপকভাবে ক্ষুব্ধ। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তিনি তাইওয়ান ত্যাগ করার কয়েক ঘণ্টা পরই তাইওয়ান ঘিরে থাকা তাইওয়ান প্রণালীতে ইতিহাসের বৃহত্তম সামরিক মহড়া শুরু করে চীন। সেই মহড়া এখনও চলছে।

এছাড়া ইতোমধ্যে সত্ত্বেও যুক্তরাষ্ট্রের পার্লামেন্ট কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভসের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি ও তার পরিবারের সদস্যদের চীনে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে দেশটির সরকার।

সূত্র : রয়টার্স

বৈশাখী নিউজ/ এপি