জোর করে টিকা নয় : ভারতের সুপ্রিম কোর্ট

এখন থেকে কাউকে করোনার টিকা নিতে বাধ্য করা যাবে না। আজ সোমবার এমন রায় ঘোষণা করেছেন ভারতের সর্বোচ্চ আদালত। সুপ্রিম কোর্ট আরও জানিয়েছেন, বর্তমান টিকাকরণ নীতিকে অযৌক্তিক বলা যায় না। তবে টিকা না নেওয়ার ফলে জনগণকে যেসব বিধিনিষেধের মুখোমুখি হতে হয়, তা ঠিক নয় বলেই আজ সুপ্রিম কোর্টের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

সুপ্রিম কোর্ট কেন্দ্রকে নির্দেশ দিয়েছেন, জনসাধারণ এবং চিকিৎসকদের কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহ করে টিকা নেওয়ার ফলে শারীরিক অসুস্থতা হয়েছে এমন ঘটনা তালিকাবদ্ধ করতে হবে। সেই তথ্য জনসাধারণের কাছে যাতে থাকে সেই ব্যবস্থাও করতে হবে। তবে কোনো ব্যক্তির তথ্যের সঙ্গে যাতে কোনো আপস না করা হয়, তাও নিশ্চিত করার নির্দেশ দিয়েছেন উচ্চ আদালত।

সম্প্রতি ভারতের সব নাগরিকের করোনার টিকা বাধ্যতামূলক করার বিষয়ে একটি পিটিশন জামা পড়েছিল সুপ্রিম কোর্টে। সেই মামলার শুনানিতেই আজ সুপ্রিম কোর্ট জানিয়ে দিলেন রাষ্ট্র কাউকে টিকা নিতে বাধ্য করতে পারবে না। এতদিন টিকা নেওয়া না থাকলে ট্রেন, বাস বিমানযাত্রা এমনকি শপিংমলে পর্যন্ত প্রবেশের অধিকার পাচ্ছিলেন না টিকায় অনাগ্রহী ব্যক্তিরা।

এদিন সুপ্রিম কোর্ট জানিয়ে দিলেন, যেকোনো ধরনের পরিষেবা পাওয়ার ক্ষেত্রে কোভিডবিধি মেনে চললেই হবে, টিকা সংক্রান্ত কোনো বাধ্যবাধকতা আর থাকবে না। তবে সুপ্রিম কোর্ট এটাও বলেছেন, সংক্রমণ কম থাকলেই এই রায় প্রযোজ্য হবে।

সম্প্রতি ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পেলেও সোমবার সেই গ্রাফ বেশ নিম্নমুখী। সোমবার আক্রান্ত হয়েছেন ৩ হাজার ১৫৭ জন, রোববার যে সংখ্যা ছিল ৩ হাজার ৩২৪ জন। সোমবার করোনায় মারা গেছেন ২৬ জন।

বৈশাখী নিউজ/ জেপা