শ্রীলঙ্কায় প্রেসিডেন্ট ভবনে বিক্ষোভকারীদের মধ্যে সংঘর্ষ

শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্টের সরকারি বাসভবন টেম্পল ট্রিতে অবস্থান নেওয়া বিক্ষোভকারীদের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। সংঘর্ষে এক নারী সহ আহত ১০ জনকে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

পুলিশ জানিয়েছে, মঙ্গলবার সকালে সংঘর্ষের এই ঘটনা ঘটে। এর আগে গত রাত ২টা ৪৫ মিনিটে সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়। দেশটির সংবাদমাধ্যম ডেইলি মিরর অনলাইন এই খবর দিয়েছে।

হাসপাতাল সূত্রের বরাতে ডেইলি মিরর অনলাইন জানিয়েছে, চিকিৎসার জন্য এক নারীসহ ১০ জনকে হাসাপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এর মধ্যে কলম্বো ন্যাশনাল হসপিটালের (সিএনএইচ) ৭২ নম্বর ওয়ার্ডে ছয়জনকে ভর্তি করা হয়।

ছয়জনের মধ্যে দুইজনকে হাসপাতালটির বহির্বিভাগে চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়। বাকিদের মধ্যে আরও দুইজন বহির্বিভাগে এখনো চিকিৎসা নিচ্ছেন। তবে সংঘর্ষে মোট কতজন আহত হয়েছেন তা জানায়নি ডেইলি মিরর।

প্রসঙ্গত, গত কয়েক মাস ধরেই শ্রীলঙ্কার অর্থনীতিতে চরম মন্দা পরিস্থিতি বিরাজ করছে। বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভ তলানিতে, মুদ্রাস্ফীতিও আকাশছোঁয়া। নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যসামগ্রী কিনতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছেন মানুষ।

এ অবস্থায় ক্ষোভ দানা বাঁধতে শুরু করে দেশটির সাধারণ নাগরিকদের মধ্যে। একপর্যায়ে রাজাপাকসে সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন শুরু হয়। বিক্ষোভ দমাতে চলতি বছর এপ্রিলের শুরুতে রাষ্ট্রীয় জরুরি অবস্থা জারি করেন প্রেসিডেন্ট রাজাপাকসে।

কিন্তু প্রেসিডেন্টের এমন পদক্ষেপ বিক্ষোভ দমাতে ব্যর্থ হয়। উল্টো মাত্রা আরও তীব্র হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আসায় মে মাসে পদত্যাগ করেন শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপাকসে। নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন রনিল বিক্রমাসিংহে।

এর মধ্যে গত শনিবার দিনভর বিক্ষোভ আন্দোলনের পর হাজার হাজার বিক্ষোভকারী প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসে এবং প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহের সরকারি বাসভবন দখলে নেয়। এরপর পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নেন প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসে।

বৈশাখী নিউজ/ বিসি