সামরিক খাতে ৭৭০ বিলিয়ন ডলার ব্যয়ের বিলে স্বাক্ষর বাইডেনের

২০২২ অর্থবছরে সামরিক খাতে ৭৭০ বিলিয়ন ডলার ব্যয় করবে যুক্তরাষ্ট্র। প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন সোমবার এ সংক্রান্ত একটি বিলে স্বাক্ষর করেছেন। খবর রয়টার্সের।

মার্কিন সামরিক ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করতে ‘ন্যাশনাল ডিফেন্স অথরাইজেশন অ্যাক্ট, ২০২২’ বা এনডিএএ নামের এই বিল চলতি ডিসেম্বর মাসের শুরুতে যুক্তরাষ্ট্রের পার্লামেন্ট কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভস ও উচ্চকক্ষ সিনেটে এই বিলটি উত্থাপন করা হয়। তার পর রিপাবলিকান পার্টি ও ডেমোক্র্যাটিক পার্টি- উভয় দলের এমপিদের ব্যাপক সমর্থনসহ পাস হয় বিলটি।

জো বাইডেনের স্বাক্ষরের মাধ্যমে আইনে পরিণত হলো এই বিলটি। স্বাক্ষরের পর এক বিবৃতিতে বাইডেন বলেন, ‘দেশের সামরিক ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করার জন্য এই আইন অত্যন্ত উপযোগী।

পাশাপাশি, নতুন এই আইনের মাধ্যমে মার্কিন সেনা সদস্য ও তাদের পরিবারের সদস্যদের প্রতি ন্যায়বিচার ও সরকারের যে অংশ মূলত সমালোচক, জাতীয় প্রতিরক্ষার প্রতি তাদের সমর্থনও নিশ্চিত হয়েছে।

বিশ্বের সবচেয়ে বড়, সমৃদ্ধ ও শক্তিশালী সামরিক বাহিনী হলো মার্কিন সামরিক বাহিনী। এই বাহিনীর বহুমাত্রিকতা ও বিস্তৃতির কারণে প্রতি বছর মার্কিন্ সামরিক খাতে সরকারি অর্থায়নের জন্য রীতিমত আইন প্রণয়ন করতে হয়। সেই আইনের নামই হলো ন্যাশনাল ডিফেন্স অথারাইজেশন অ্যাক্ট (এনডিএএ)।

গত ৬ দশক ধরে প্রতিবছরই জারি হচ্ছে এনডিএএ। চলতি বছরের আইনের নাম ‘এনডিএএ ২০২২’।

সদ্য শেষ হওয়া ২০২১ অর্থবছরের তুলনায় ২০২২ সালে সামরিক খাতে ৫ শতাংশ ব্যায় বাড়ানো হয়েছে। বর্ধিত এই ব্যায়ের অর্ধেকেরও বেশি খরচ হবে সেনাবহর সমৃদ্ধকরণ, যুদ্ধবিমান ও যুদ্ধজাহাজ ক্রয়বিষয়ক খাতে।

এ ছাড়া নতুন এনডিএএ অনুযায়ী, ইউক্রেনকে ৩০০ মিলিয়ন ডলার আর্থিক সহায়তা দেবে যুক্তরাষ্ট্র।

পাশাপাশি, ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিরক্ষা বিভাগকে ৪ বিলিয়ন এবং বাল্টিক অঞ্চলের প্রতিরক্ষা বিভাগকে ১৫০ মিলিয়ন ডলার আর্থিক সহায়তা দেওয়া হবে।

এ ছাড়া, চীনকে ‘শিক্ষা’ দেওয়ার জন্য তাইওয়ানের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করতে চায় যুক্তরাষ্ট্র। এ জন্য নতুন আইনের আওতায় তাইওয়ানকে ৭ দশমিক ১ বিলিয়ন ডলার দেওয়া হবে।

বৈশাখী নিউজ/ ইডি