লা পেন ফ্রান্সে গৃহযুদ্ধ বাধাবেন: ম্যাক্রোঁ

ফ্রান্সে বুধবার দুই প্রেসিডেন্ট প্রার্থী এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ ও ম্যারিন লা পেনের মধ্যে টিভি বিতর্ক অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় বর্তমান প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ বলেন, ম্যারিন লা পেন ক্ষমতায় এলে ফ্রান্সে গৃহযুদ্ধ বাধাবেন তিনি।খবর আল আরাবিয়ার।

কারণ, কট্টর ডানপন্থি এ প্রেসিডেন্ট প্রার্থী কথা দিয়েছেন- নির্বাচনে জিতেই মুসলিম নারীদের হিজাব নিষিদ্ধ করবেন।

আর এটা করতে গেলেই দেশজুড়ে একটা ধর্মীয় উত্তেজনা সৃষ্টি হবে।যা ফ্রান্সকে একটা গৃহযুদ্ধের দিকে ঢেলে দিতে পারে।

উল্লেখ্য, আগামী ২৪ এপ্রিল এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ ও ম্যারিন লা পেন প্রেসিডেন্ট পদে চূড়ান্ত ও শেষ ধাপের নির্বাচনে লড়বেন।

এর আগে গত ১০ এপ্রিল প্রেসিডেন্ট পদে প্রথম দফার নির্বাচনে ১২ প্রার্থী অংশ নেন।এদের মধ্যে প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ প্রথম রাউন্ডে ২৯ শতাংশ এবং ম্যারিন লা পেন ২৪ শতাংশ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় দফার নির্বাচনে অংশ নেওয়ার যোগ্যতা অর্জন করেন।

উদার অর্থনীতি এবং বৈশ্বিক দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে নির্বাচনে লড়েছেন প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ।ইউক্রেন যুদ্ধের আগ পর্যন্ত রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের প্রকাশ্য প্রশংসাকারী ছিলেন তিনি।

বিগত দুই দশকের মধ্যে ফ্রান্সের কোনও প্রেসিডেন্ট দ্বিতীয় মেয়াদে জয় পাননি। এক মাসে আগেও মনে করা হচ্ছিল সেই অবস্থা পাল্টাতে চলেছেন ম্যাক্রোঁ।

জোরালো অর্থনৈতিক উন্নতি, ভেঙে পড়া বিরোধী শিবির এবং পূর্ব ইউরোপে যুদ্ধ এড়াতে রাষ্ট্রনায়কোচিত ভূমিকার পিঠে চড়ে ফের ক্ষমতায় বসতে যাচ্ছেন বলে অনেকেই ধারণা করছিলেন।

অন্যদিকে ম্যারিন লা পেন কয়েক মাস ধরেই ফ্রান্সের শহর ও গ্রামে প্রচার চালিয়েছেন। জীবনযাত্রার ব্যয় বৃদ্ধির ওপর জোর দেওয়াসহ হিজাব বন্ধের ঘোষণাসহ ইসলামবিরোধী প্রচারনা চালিয়ে গেছেন তিনি।

বৈশাখী নিউজ/ এপি